০৮:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন: চলছে প্রস্তুতি

সুবর্ণজয়ন্তী

print news -

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী  উদযাপন: চলছে প্রস্তুতি

‘দুটি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ’ সিলেটের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি, চায়ের রাজধানীখ্যাত ঐতিহাসিক জনপদ সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার কুড়ারবাজার ইউনিয়নের অন্তর্গত কুশিয়ারা নদীর তীর ঘেষে অবস্তিত বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়টি ৫০ বছর উদযাপনের সুবর্ণজয়ন্তী  পালন করতে চলেছে। প্রাচিন এই বিদ্যাপিঠ স্থানীয় কিছু শিক্ষানুরাগী নিবেদিত প্রাণ ব্যক্তির উদ্যোগ ও প্রচেষ্টায় এলাকায় শিক্ষার আলো বিস্তারে ১৯৭২ সালে বৈরাগীবাজারের বক্ষ ঘেষে গড়ে উঠেছিল ‘বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়’।

জেলার এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ৫০ বছর উদযাপনের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব আগামী ২০২৩ সনের জানুয়ারী মাসের ১৮-১৮ তারিখে করার পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে।‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’- এ স্লোগান নিয়ে অনুষ্ঠিতব্য উৎসবের সকল প্রকার প্রস্তুতি চলছে এখন। এ উপলক্ষে সুবর্ণজয়ন্তীর বর্ণিল উৎসবে বিদ্যালয়ের ৫০টি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবেন। এ এক মহোউৎসব, প্রানে প্রানে বেজে উটুক আনন্দের ঝঙ্কার।

জানাগেছে, বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অন্যতম সদস্যসহ কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্রদের উদ্দোগে ২০২০ সালের জুলাই মাসে বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী   ও পূর্নমিলনী ২০২২ নামক একটি ফেইসবুক গ্রুফ এর মাধ্যমে এর পদযাত্রা শুরু হয়। তারই দ্বারাবাহিকতায় এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে বিদ্যালয়ের সভাকক্ষে প্রস্তুতি মূলক সভা আয়োজন করা হয় কিন্তু দু:খের বিষয় করোনা মহামারীর কারনে এবং সম্প্রতি ঘটে যাওয়া বন্যার কারনে সুবর্নজয়ন্তীর প্রস্তুতি বাধাগ্রস্থ হয়ে পড়ে। সম্প্রতি কয়েকটি মিটিং এর মাধ্যমে সুবর্নজয়ন্তী উদযাপন পরিষদ গঠন  করা হয়েছে এবং সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহন করা হচ্ছে।

বৈরাগীবাজারের প্রাচীন ও প্রথম বিদ্যালয় ১৯৭২ সালে যাত্রা শুরু করে বিয়ানীবাজারের সর্বোচ্চ এই বিদ্যাপিঠ। চলতি বছর প্রতিষ্ঠার ৫০ বছর পেরিয়ে পদার্পণ করেছে ৫১তম বছরে। ১ জানুয়ারী থেকে জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে বিদ্যালয়ের ৫০ বছর উদযাপন করার কথা থাকলেও মহামারি করোনা পরিস্থিতি ও বন্যা পরিস্থিতি বিবেচনায় তা পিছিয়ে আগামী জানুয়ারীর মাঝামাজি সময়ে  উদযাপন করা যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। আর এই উদযাপনকে ঘিরে চলছে এখন প্রস্তুতি। উদযাপন প্রস্তুতি কে সামনে রেখে বৈরাগীবাজার এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,প্রবাসীবৃন্দ এবং বৈরাগীবাজার ‍উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্র/ছাত্রীদের এগিয়ে আসতে হবে। যার যার অবস্থান থেকে সহযোগীতা করতে হবে।

সুবর্ণজয়ন্তী  উদযাপনের মূল মঞ্চ হবে বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে। সেখানে বসে শিক্ষার্থীরা বড় স্ক্রিনে সুবর্নজয়ন্তী অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবেন। সেই প্রস্তুতির অংশ হিসেবে বিদ্যালয় মাঠ মেরামতের পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে।

এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরাজ করছে উদ্দীপনা। সেই কাঙ্ক্ষিত দিনটি আসন্ন, সকল ধরনের প্রস্তুতি চলছে। চারদিকের উৎসবমুখর পরিবেশ, সত্যি দারুণ অনুভূতি কাজ করছে।

বিদ্যালরেয় প্রাক্তন ছাত্র গোপাল চন্দ্র দাস বলেন, সুবর্ণজয়ন্তীর মাহেন্দ্রক্ষণে এসে এই বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী হতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। বিদ্যালয়ের এমন নতুন সাজে নিজেকে যেন হারিয়ে ফেলতে ইচ্ছে করছে। লাল-নীল বহুরূপী সজ্জায় সজ্জিত হবে প্রিয় বিদ্যালয়।শিগ্রই যেন নববধূর সাজে সজ্জিত হতে চলেছে আমার প্রাণের ক্যাম্পাস। আমার প্রিয় শিক্ষাঙ্গন, প্রিয় বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়।

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র আলী হোসেন বলেন, বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সুবর্নজয়ন্তী উদযাপন কে আমি স্বাগত জানাচ্ছি। আমি নিজেকে ধন্য মনে করি যে, আমার প্রিয় ক্যাম্পস থেকে এসএসসি পাস করে বর্তমানে উক্ত প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছি। প্রাচীন এই বিদ্যাপীঠের পঞ্চাশ বছরপূর্তি উৎসবটি এখন পর্যন্ত বিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান হিসেবেই বিবেচিত হবে। সাবেক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বর্তমান শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সার্বিকভাবে যুক্ত রয়েছে। কয়েক হাজার সাবেক শিক্ষার্থী উৎসবে মিলিত হবেন। আমি উদযাপিত অনুষ্ঠানের সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করছি।

জনপ্রিয় সংবাদ

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন: চলছে প্রস্তুতি

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০২:৩৮:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৪ নভেম্বর ২০২২
print news -

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী  উদযাপন: চলছে প্রস্তুতি

‘দুটি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ’ সিলেটের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি, চায়ের রাজধানীখ্যাত ঐতিহাসিক জনপদ সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার কুড়ারবাজার ইউনিয়নের অন্তর্গত কুশিয়ারা নদীর তীর ঘেষে অবস্তিত বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়টি ৫০ বছর উদযাপনের সুবর্ণজয়ন্তী  পালন করতে চলেছে। প্রাচিন এই বিদ্যাপিঠ স্থানীয় কিছু শিক্ষানুরাগী নিবেদিত প্রাণ ব্যক্তির উদ্যোগ ও প্রচেষ্টায় এলাকায় শিক্ষার আলো বিস্তারে ১৯৭২ সালে বৈরাগীবাজারের বক্ষ ঘেষে গড়ে উঠেছিল ‘বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়’।

জেলার এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ৫০ বছর উদযাপনের সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব আগামী ২০২৩ সনের জানুয়ারী মাসের ১৮-১৮ তারিখে করার পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে।‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’- এ স্লোগান নিয়ে অনুষ্ঠিতব্য উৎসবের সকল প্রকার প্রস্তুতি চলছে এখন। এ উপলক্ষে সুবর্ণজয়ন্তীর বর্ণিল উৎসবে বিদ্যালয়ের ৫০টি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা অংশ নেবেন। এ এক মহোউৎসব, প্রানে প্রানে বেজে উটুক আনন্দের ঝঙ্কার।

জানাগেছে, বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অন্যতম সদস্যসহ কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্রদের উদ্দোগে ২০২০ সালের জুলাই মাসে বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের সুবর্ণজয়ন্তী   ও পূর্নমিলনী ২০২২ নামক একটি ফেইসবুক গ্রুফ এর মাধ্যমে এর পদযাত্রা শুরু হয়। তারই দ্বারাবাহিকতায় এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে বিদ্যালয়ের সভাকক্ষে প্রস্তুতি মূলক সভা আয়োজন করা হয় কিন্তু দু:খের বিষয় করোনা মহামারীর কারনে এবং সম্প্রতি ঘটে যাওয়া বন্যার কারনে সুবর্নজয়ন্তীর প্রস্তুতি বাধাগ্রস্থ হয়ে পড়ে। সম্প্রতি কয়েকটি মিটিং এর মাধ্যমে সুবর্নজয়ন্তী উদযাপন পরিষদ গঠন  করা হয়েছে এবং সকল প্রকার প্রস্তুতি গ্রহন করা হচ্ছে।

বৈরাগীবাজারের প্রাচীন ও প্রথম বিদ্যালয় ১৯৭২ সালে যাত্রা শুরু করে বিয়ানীবাজারের সর্বোচ্চ এই বিদ্যাপিঠ। চলতি বছর প্রতিষ্ঠার ৫০ বছর পেরিয়ে পদার্পণ করেছে ৫১তম বছরে। ১ জানুয়ারী থেকে জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে বিদ্যালয়ের ৫০ বছর উদযাপন করার কথা থাকলেও মহামারি করোনা পরিস্থিতি ও বন্যা পরিস্থিতি বিবেচনায় তা পিছিয়ে আগামী জানুয়ারীর মাঝামাজি সময়ে  উদযাপন করা যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। আর এই উদযাপনকে ঘিরে চলছে এখন প্রস্তুতি। উদযাপন প্রস্তুতি কে সামনে রেখে বৈরাগীবাজার এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,প্রবাসীবৃন্দ এবং বৈরাগীবাজার ‍উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্র/ছাত্রীদের এগিয়ে আসতে হবে। যার যার অবস্থান থেকে সহযোগীতা করতে হবে।

সুবর্ণজয়ন্তী  উদযাপনের মূল মঞ্চ হবে বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে। সেখানে বসে শিক্ষার্থীরা বড় স্ক্রিনে সুবর্নজয়ন্তী অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবেন। সেই প্রস্তুতির অংশ হিসেবে বিদ্যালয় মাঠ মেরামতের পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে।

এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিরাজ করছে উদ্দীপনা। সেই কাঙ্ক্ষিত দিনটি আসন্ন, সকল ধরনের প্রস্তুতি চলছে। চারদিকের উৎসবমুখর পরিবেশ, সত্যি দারুণ অনুভূতি কাজ করছে।

বিদ্যালরেয় প্রাক্তন ছাত্র গোপাল চন্দ্র দাস বলেন, সুবর্ণজয়ন্তীর মাহেন্দ্রক্ষণে এসে এই বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী হতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। বিদ্যালয়ের এমন নতুন সাজে নিজেকে যেন হারিয়ে ফেলতে ইচ্ছে করছে। লাল-নীল বহুরূপী সজ্জায় সজ্জিত হবে প্রিয় বিদ্যালয়।শিগ্রই যেন নববধূর সাজে সজ্জিত হতে চলেছে আমার প্রাণের ক্যাম্পাস। আমার প্রিয় শিক্ষাঙ্গন, প্রিয় বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়।

বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র আলী হোসেন বলেন, বৈরাগীবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সুবর্নজয়ন্তী উদযাপন কে আমি স্বাগত জানাচ্ছি। আমি নিজেকে ধন্য মনে করি যে, আমার প্রিয় ক্যাম্পস থেকে এসএসসি পাস করে বর্তমানে উক্ত প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছি। প্রাচীন এই বিদ্যাপীঠের পঞ্চাশ বছরপূর্তি উৎসবটি এখন পর্যন্ত বিদ্যালয়ের সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান হিসেবেই বিবেচিত হবে। সাবেক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বর্তমান শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সার্বিকভাবে যুক্ত রয়েছে। কয়েক হাজার সাবেক শিক্ষার্থী উৎসবে মিলিত হবেন। আমি উদযাপিত অনুষ্ঠানের সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা করছি।