০১:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়া’য় হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার- ১

print news -

নিউজ ডেস্ক: মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়া’য় হত্যার ঘটনায় একজনরক গ্রেফতার করা হয়েছে। নোয়াখালীর সদর উপজেলার সাহেবের হাট এলাকায় বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড বিআরডিবির কর্মকর্তা হুমায়ন কবির মুকুল হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মো. ওমরকে (২৩) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। মো. ওমর সদর উপজেলার এওজবালিয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর ছেলে।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার  রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১১ সিপিসি-৩ নোয়াখালী ক্যাম্পের সহকারী পুলিশ সুপার স্কোয়াড কমান্ডার মো. গোলাম মোর্শেদ। এর আগে, একই দিন সকালের দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার কাঁচপুর ব্রিজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নিহত মুকুল বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড বিআরডিবির একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের নোয়াখালী সেনবাগের মাঠ সহকারী পদে কর্মরত ছিলেন। ওমর ও মামলার অন্যতম আসামি অপর আসামিরা এলাকার চিহিৃত মাদক কারবারি। তাদের মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়ায় ভিকটিমের প্রতি আসামিদের ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। গত ১ অক্টোবর সকালে আসামি কামাল ভিকটিমকে প্রকাশ্য বাজারে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরে একই দিন বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার সাহেবের হাট বাজারে মুকুলের উপর হামলা করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ভিকটিমের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে জখম করে। একপর্যায়ে মুকুল চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৭ নভেম্বর সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। এদিকে মাদকসেবী অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধনসহ বিচার দাবি করছে এলাকাবাসী ও স্বজনরা।

ট্যাগঃ

মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়া’য় হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার- ১

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৩:০০:৪৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০২৩
print news -

নিউজ ডেস্ক: মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়া’য় হত্যার ঘটনায় একজনরক গ্রেফতার করা হয়েছে। নোয়াখালীর সদর উপজেলার সাহেবের হাট এলাকায় বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড বিআরডিবির কর্মকর্তা হুমায়ন কবির মুকুল হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মো. ওমরকে (২৩) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। মো. ওমর সদর উপজেলার এওজবালিয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর ছেলে।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার  রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-১১ সিপিসি-৩ নোয়াখালী ক্যাম্পের সহকারী পুলিশ সুপার স্কোয়াড কমান্ডার মো. গোলাম মোর্শেদ। এর আগে, একই দিন সকালের দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার কাঁচপুর ব্রিজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নিহত মুকুল বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড বিআরডিবির একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের নোয়াখালী সেনবাগের মাঠ সহকারী পদে কর্মরত ছিলেন। ওমর ও মামলার অন্যতম আসামি অপর আসামিরা এলাকার চিহিৃত মাদক কারবারি। তাদের মাদক বাণিজ্যে বাধা দেওয়ায় ভিকটিমের প্রতি আসামিদের ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। গত ১ অক্টোবর সকালে আসামি কামাল ভিকটিমকে প্রকাশ্য বাজারে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরে একই দিন বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার সাহেবের হাট বাজারে মুকুলের উপর হামলা করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ভিকটিমের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে জখম করে। একপর্যায়ে মুকুল চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৭ নভেম্বর সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। এদিকে মাদকসেবী অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধনসহ বিচার দাবি করছে এলাকাবাসী ও স্বজনরা।