০৬:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিএসএফের গুলিতে বিজিবি সদস্য নিহত

print news -

বেনাপোলের ধান্যখোলা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে সিপাহি মোহাম্মদ রইশুদ্দীন নামে এক বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এসময় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২২ জানুয়ারি আনুমানিক ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বিজিবি যশোর ব্যাটালিয়নের ধান্যখোলা বিওপির জেলেপাড়া পোস্ট সংলগ্ন এলাকায় ভারত থেকে আসা গরু চোরাকারবারিদের একটি দলকে সীমান্ত অতিক্রম করতে দেখে দায়িত্বরত বিজিবি টহল দল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। এসময় তারা দৌড়ে ভারতের দিকে পালিয়ে যায়।

এসময় বিজিবি টহল দলের সদস্য সিপাহি মোহাম্মদ রইশুদ্দীন চোরাকারবারিদের পেছনে ধাওয়া করতে করতে ঘন কুয়াশার কারণে দলবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। প্রাথমিকভাবে তাকে খুঁজে পাওয়া না গেলেও পরে বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায় তিনি বিএসএফের গুলিতে আহত হয়ে ভারতের অভ্যন্তরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঘটনার পরপরই এ বিষয়ে ব্যাটালিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠক করা হয়। এবং জানা যায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই সৈনিক মারা গেছেন।

বিএসএফকে বিষয়টির ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানানোর পাশাপাশি কূটনৈতিকভাবে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও নিহত বিজিবি সদস্যের মরদেহ বাংলাদেশে দ্রুত ফেরত আনার বিষয়ে সব পর্যায়ে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।

ট্যাগঃ

বিএসএফের গুলিতে বিজিবি সদস্য নিহত

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৫:২২:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২৪
print news -

বেনাপোলের ধান্যখোলা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে সিপাহি মোহাম্মদ রইশুদ্দীন নামে এক বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এসময় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২২ জানুয়ারি আনুমানিক ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বিজিবি যশোর ব্যাটালিয়নের ধান্যখোলা বিওপির জেলেপাড়া পোস্ট সংলগ্ন এলাকায় ভারত থেকে আসা গরু চোরাকারবারিদের একটি দলকে সীমান্ত অতিক্রম করতে দেখে দায়িত্বরত বিজিবি টহল দল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। এসময় তারা দৌড়ে ভারতের দিকে পালিয়ে যায়।

এসময় বিজিবি টহল দলের সদস্য সিপাহি মোহাম্মদ রইশুদ্দীন চোরাকারবারিদের পেছনে ধাওয়া করতে করতে ঘন কুয়াশার কারণে দলবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। প্রাথমিকভাবে তাকে খুঁজে পাওয়া না গেলেও পরে বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায় তিনি বিএসএফের গুলিতে আহত হয়ে ভারতের অভ্যন্তরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঘটনার পরপরই এ বিষয়ে ব্যাটালিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠক করা হয়। এবং জানা যায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই সৈনিক মারা গেছেন।

বিএসএফকে বিষয়টির ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানানোর পাশাপাশি কূটনৈতিকভাবে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও নিহত বিজিবি সদস্যের মরদেহ বাংলাদেশে দ্রুত ফেরত আনার বিষয়ে সব পর্যায়ে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।