০১:০৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ড: কেনাকাটা করতে গিয়ে একসঙ্গে মারা যান ৩ বোন

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ড: কেনাকাটা করতে গিয়ে একসঙ্গে মারা যান ৩ বোন,

print news -

নিউজ ডেস্ক: শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে মালয়েশিয়া যাওয়ার ফ্লাইট ছিল। আগের দিন, তারা তাদের এক আন্টির সঙ্গে দেখা করতে শপিং করতে গিয়েছিল। আমার দুই মেয়ে সেখানে গিয়েছিল এবং আর ফিরে আসেনি। যাওয়ার আগে বলেছিল, বাবা, আমরা তাড়াতাড়ি ফিরব। এ কথা বলে কেঁদে ফেলেছিলেন বাবা কোরবান আলী।

বেইলি রোডের আগুনে তার মেয়ে ফৌজিয়া আফরিন রিয়া ও সাদিয়া আফরিন আলিশা মারা যান।

জানা গেছে, বেইলি রোডের বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত ৪৬ জনের মধ্যে রিয়া ও আলিশা দুজন। তারা কুমিল্লার লালমাই উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের চরবাড়িয়া এলাকার হাজী কোরবান আলীর মেয়ে। ফৌজিয়া আফরিন রিয়া মালয়েশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ শেষ বর্ষের ছাত্রী। আর সাদিয়া আফরিন আলিশা ঢাকার ভিকারুননিসা নূন স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

একই ঘটনায় তাদের চাচাতো বোন নুসরাত জাহান নিমু মারা যান। সে সদর উপজেলার হাতিগাড়া এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে ও ঢাকা সিটি কলেজের ছাত্রী। তারা একসঙ্গে কেনাকাটা করতে গিয়েছিল। এদিকে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে খেতে ঢুকেছিলেন।

কোরবান আলী বলেন, “ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে তারা এলাকায় আসেন। কয়েকদিনের জন্য বাড়ি থেকে চলে যান। শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে আমাদের মালয়েশিয়া যাওয়ার কথা ছিল। টিকিটও বিক্রি হয়ে গেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে মারা গেছে। রাতে.. নিমু ওদের।” চাচাতো ভাই। এবং সেই সঙ্গে তিনি চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। আমার ঘর আনন্দে ভরে গেল। আজ আমার ঘর খালি।

চরবাড়ি এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ওই বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভিড়। সবার চোখে জল। শোকাহতদের ঘিরে নারীদের ভিড়। কেউ মরা গাড়িটা ধরে কাঁদছে।

কাঁদতে কাঁদতে কোরবান আলী বলেন, জীবিতদের উদ্ধারের কাজ শেষ হলে আমার শরীর কাঁপছিল। আমি ঘামছিলাম। মনের কথা জানব কিভাবে? আমার চোখ অশ্রুসিক্ত এবং আমার বুক ভারি। রাত ১০টার দিকে লাশটি আমাদের কাছে প্রকাশ করা হয়। সন্ধ্যায় যে মেয়েটি আমাকে বিদায় দিয়েছিল সেই পোড়া দেহটি আমাকে দেওয়া হলো। আমার দুই স্বপ্নের লাশ নিয়ে বাসায় এলাম। বিকেলে পুকুর পাড়ে কবরস্থানে আমার দুটি স্বপ্ন রেখে যাবো।

তিনি সরকারকে দোষারোপ করে বলেন, ‘আমরা যারা ঢাকায় থাকি তারা সবসময় আতঙ্কে থাকি। কেউ নিরাপদ না। দুর্ঘটনা ঘটলে সবাই হতবাক। কয়েকদিন পর আবার স্বাভাবিক হয়। তাদের কেউই পুড়ে মরেনি। শ্বাসরোধে মারা গেছে। তারা বের হতে পারেনি। ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে। কিন্তু ডিশ লাইন ক্যাবল, ইন্টারনেট ক্যাবল ও ইলেকট্রিক ক্যাবলের জন্য তারা তাদের গাড়ি সঠিক জায়গায় বসিয়ে পানি দিতে পারেনি। আর ফলাফল লাশের পর লাশ।

ট্যাগঃ

নরসিংদী কারাগার থেকে পালানো জঙ্গি  সদস্য সোনারগাঁওয়ে গ্রেপ্তার

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ড: কেনাকাটা করতে গিয়ে একসঙ্গে মারা যান ৩ বোন

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৫:০০:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪
print news -

নিউজ ডেস্ক: শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে মালয়েশিয়া যাওয়ার ফ্লাইট ছিল। আগের দিন, তারা তাদের এক আন্টির সঙ্গে দেখা করতে শপিং করতে গিয়েছিল। আমার দুই মেয়ে সেখানে গিয়েছিল এবং আর ফিরে আসেনি। যাওয়ার আগে বলেছিল, বাবা, আমরা তাড়াতাড়ি ফিরব। এ কথা বলে কেঁদে ফেলেছিলেন বাবা কোরবান আলী।

বেইলি রোডের আগুনে তার মেয়ে ফৌজিয়া আফরিন রিয়া ও সাদিয়া আফরিন আলিশা মারা যান।

জানা গেছে, বেইলি রোডের বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত ৪৬ জনের মধ্যে রিয়া ও আলিশা দুজন। তারা কুমিল্লার লালমাই উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের চরবাড়িয়া এলাকার হাজী কোরবান আলীর মেয়ে। ফৌজিয়া আফরিন রিয়া মালয়েশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ শেষ বর্ষের ছাত্রী। আর সাদিয়া আফরিন আলিশা ঢাকার ভিকারুননিসা নূন স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

একই ঘটনায় তাদের চাচাতো বোন নুসরাত জাহান নিমু মারা যান। সে সদর উপজেলার হাতিগাড়া এলাকার আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে ও ঢাকা সিটি কলেজের ছাত্রী। তারা একসঙ্গে কেনাকাটা করতে গিয়েছিল। এদিকে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে খেতে ঢুকেছিলেন।

কোরবান আলী বলেন, “ফেব্রুয়ারি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে তারা এলাকায় আসেন। কয়েকদিনের জন্য বাড়ি থেকে চলে যান। শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে আমাদের মালয়েশিয়া যাওয়ার কথা ছিল। টিকিটও বিক্রি হয়ে গেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে মারা গেছে। রাতে.. নিমু ওদের।” চাচাতো ভাই। এবং সেই সঙ্গে তিনি চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। আমার ঘর আনন্দে ভরে গেল। আজ আমার ঘর খালি।

চরবাড়ি এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ওই বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভিড়। সবার চোখে জল। শোকাহতদের ঘিরে নারীদের ভিড়। কেউ মরা গাড়িটা ধরে কাঁদছে।

কাঁদতে কাঁদতে কোরবান আলী বলেন, জীবিতদের উদ্ধারের কাজ শেষ হলে আমার শরীর কাঁপছিল। আমি ঘামছিলাম। মনের কথা জানব কিভাবে? আমার চোখ অশ্রুসিক্ত এবং আমার বুক ভারি। রাত ১০টার দিকে লাশটি আমাদের কাছে প্রকাশ করা হয়। সন্ধ্যায় যে মেয়েটি আমাকে বিদায় দিয়েছিল সেই পোড়া দেহটি আমাকে দেওয়া হলো। আমার দুই স্বপ্নের লাশ নিয়ে বাসায় এলাম। বিকেলে পুকুর পাড়ে কবরস্থানে আমার দুটি স্বপ্ন রেখে যাবো।

তিনি সরকারকে দোষারোপ করে বলেন, ‘আমরা যারা ঢাকায় থাকি তারা সবসময় আতঙ্কে থাকি। কেউ নিরাপদ না। দুর্ঘটনা ঘটলে সবাই হতবাক। কয়েকদিন পর আবার স্বাভাবিক হয়। তাদের কেউই পুড়ে মরেনি। শ্বাসরোধে মারা গেছে। তারা বের হতে পারেনি। ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে। কিন্তু ডিশ লাইন ক্যাবল, ইন্টারনেট ক্যাবল ও ইলেকট্রিক ক্যাবলের জন্য তারা তাদের গাড়ি সঠিক জায়গায় বসিয়ে পানি দিতে পারেনি। আর ফলাফল লাশের পর লাশ।