১২:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নি*হ*ত হয়েছে

গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নি*হ*ত হয়েছে

গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় নিহত ৩০ হাজার ছাড়াল,

print news -

নিউজ ডেস্ক:  গাজায় খাবারে র অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদে র ওপর ইসরাই লি বাহিনীর গুলি তে ৭০ জনের ও বেশি মানুষ নি হ ত হয়েছে। ৭ অক্টোবর যু দ্ধ শুরু হওয়ার পর উপত্যকায় ৩০,০০০ মানুষ নি হ ত হয়।

সেখানকার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এমন তথ্য দিয়েছে।
দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে থাকা গাজায় গভীরতর মানবিক সংকটের মধ্যে বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয় এ ঘোষণা দিয়েছে। এদিকে, ইসরাইলি বাহিনী আবার রাফাতে স্থল অভিযানের হুমকি দিচ্ছে, যেখানে ১.৫ মিলিয়ন মানুষের বাস, যাদের বেশিরভাগই যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ভয়াবহ সহিংসতা ও দুর্ভোগ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। সেখানে ৭০ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়।

আরো পড়ুন: গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছে

আন্তর্জাতিক নিন্দাকে অস্বীকার করে, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু পুনর্ব্যক্ত করেছেন যে রাফাহতে অভিযান অব্যাহত থাকবে, জরুরিভাবে প্রয়োজনীয় খাদ্য ও ওষুধ সরবরাহের জন্য একটি মূল প্রবেশপথ।

তিনি বলেছিলেন যে শুধুমাত্র একটি বন্দী বিনিময় চুক্তি জনাকীর্ণ শহরে আক্রমণকে বিলম্বিত করবে। এটি কাতার, মিশর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরাইল এবং হামাসের মধ্যে একটি যুদ্ধবিরতির অংশ।

অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেম থেকে আল জাজিরার সংবাদদাতা উইলিয়াম মার্কস বলেছেন, যদি এলাকাটি সংঘর্ষের কেন্দ্রে পরিণত হয়, তাহলে সেখানকার মানুষের কাছে খাদ্য পৌঁছে দেওয়ার জন্য সাহায্য সংস্থাগুলির ক্ষমতা মারাত্মকভাবে আপস করা হবে।

গাজার অবনতিশীল পরিস্থিতির উল্লেখ করে এক্স হ্যান্ডেলে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে, ইউএসএআইডি প্রধান সামান্থা পাওয়ার বলেছেন যে ইসরাইলকে আরও ক্রসিং খুলতে হবে যাতে খুব প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা দ্রুত সরবরাহ করা যায়। এটা জীবন-মৃত্যুর ব্যাপার।

আরো পড়ুন: গাজায় নিহতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩০ হাজারের বেশি

ইসরাইলি বাহিনী পরিকল্পিতভাবে খাদ্য ও ত্রাণ সরবরাহের অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালায়।

বৃহস্পতিবার, ইসরাইলি বাহিনী তাদের পরিবারের জন্য আটা সংগ্রহের অপেক্ষায় থাকা বেসামরিকদের উপর হামলা চালায়। ৭০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়। ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং প্রবাসীরা এ ঘটনাকে ঠান্ডা মাথায় ধ্বংসযজ্ঞ হিসেবে বর্ণনা করেছে।

একই দিনে, নুসাইরাত, বুরেজ এবং খান ইউনিসে শরণার্থীদের উপর পৃথক ইসরাইলি বিমান হামলা এবং বোমা হামলায় কমপক্ষে ৩০ জন নিহত হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এই সংঘর্ষে ৩০ হাজার ৩৫ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৩ হাজার শিশু ও ৮ হাজার ৮০০ নারী। আহত হয়েছেন ৭০ হাজার ৪৫৭ জন। এদের মধ্যে ১১ হাজার জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সুত্র: বাংলা নিউজ২৪ ডট কম

জনপ্রিয় সংবাদ

মুক্তিযুদ্ধা সংগঠক আব্দুর রাজ্জাকের ইন্তেকাল।। বিশিষ্টজনের শোক প্রকাশ

গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নি*হ*ত হয়েছে

গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ৩০ হাজারের বেশি মানুষ নি*হ*ত হয়েছে

প্রকাশিত হয়েছেঃ ১১:৪৭:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪
print news -

নিউজ ডেস্ক:  গাজায় খাবারে র অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদে র ওপর ইসরাই লি বাহিনীর গুলি তে ৭০ জনের ও বেশি মানুষ নি হ ত হয়েছে। ৭ অক্টোবর যু দ্ধ শুরু হওয়ার পর উপত্যকায় ৩০,০০০ মানুষ নি হ ত হয়।

সেখানকার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এমন তথ্য দিয়েছে।
দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে থাকা গাজায় গভীরতর মানবিক সংকটের মধ্যে বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয় এ ঘোষণা দিয়েছে। এদিকে, ইসরাইলি বাহিনী আবার রাফাতে স্থল অভিযানের হুমকি দিচ্ছে, যেখানে ১.৫ মিলিয়ন মানুষের বাস, যাদের বেশিরভাগই যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ভয়াবহ সহিংসতা ও দুর্ভোগ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। সেখানে ৭০ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়।

আরো পড়ুন: গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছে

আন্তর্জাতিক নিন্দাকে অস্বীকার করে, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু পুনর্ব্যক্ত করেছেন যে রাফাহতে অভিযান অব্যাহত থাকবে, জরুরিভাবে প্রয়োজনীয় খাদ্য ও ওষুধ সরবরাহের জন্য একটি মূল প্রবেশপথ।

তিনি বলেছিলেন যে শুধুমাত্র একটি বন্দী বিনিময় চুক্তি জনাকীর্ণ শহরে আক্রমণকে বিলম্বিত করবে। এটি কাতার, মিশর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরাইল এবং হামাসের মধ্যে একটি যুদ্ধবিরতির অংশ।

অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেম থেকে আল জাজিরার সংবাদদাতা উইলিয়াম মার্কস বলেছেন, যদি এলাকাটি সংঘর্ষের কেন্দ্রে পরিণত হয়, তাহলে সেখানকার মানুষের কাছে খাদ্য পৌঁছে দেওয়ার জন্য সাহায্য সংস্থাগুলির ক্ষমতা মারাত্মকভাবে আপস করা হবে।

গাজার অবনতিশীল পরিস্থিতির উল্লেখ করে এক্স হ্যান্ডেলে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে, ইউএসএআইডি প্রধান সামান্থা পাওয়ার বলেছেন যে ইসরাইলকে আরও ক্রসিং খুলতে হবে যাতে খুব প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা দ্রুত সরবরাহ করা যায়। এটা জীবন-মৃত্যুর ব্যাপার।

আরো পড়ুন: গাজায় নিহতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩০ হাজারের বেশি

ইসরাইলি বাহিনী পরিকল্পিতভাবে খাদ্য ও ত্রাণ সরবরাহের অপেক্ষায় থাকা ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালায়।

বৃহস্পতিবার, ইসরাইলি বাহিনী তাদের পরিবারের জন্য আটা সংগ্রহের অপেক্ষায় থাকা বেসামরিকদের উপর হামলা চালায়। ৭০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়। ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং প্রবাসীরা এ ঘটনাকে ঠান্ডা মাথায় ধ্বংসযজ্ঞ হিসেবে বর্ণনা করেছে।

একই দিনে, নুসাইরাত, বুরেজ এবং খান ইউনিসে শরণার্থীদের উপর পৃথক ইসরাইলি বিমান হামলা এবং বোমা হামলায় কমপক্ষে ৩০ জন নিহত হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এই সংঘর্ষে ৩০ হাজার ৩৫ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৩ হাজার শিশু ও ৮ হাজার ৮০০ নারী। আহত হয়েছেন ৭০ হাজার ৪৫৭ জন। এদের মধ্যে ১১ হাজার জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সুত্র: বাংলা নিউজ২৪ ডট কম