০৪:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে ছেলে হারানোর ১৩ দিনের মাতায় বসতঘর আগুনে পুড়ে ছাই, তিন লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

print news -

আলমগীর হোসেন ,কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জর শমশেরনগর ইউনিয়নের পুর্ব ভাদাইরদেউল এলাকার নূরজান বেগমের সন্তান হারানোর ১৩দিনের মাথায় আগুনেপুড়ে ছাই হয়ে গেলো বসতঘর । বসতঘর পুড়ে যাওয়া পরিবারের সদস্যদের খোলা আকাশের নিচে দিন কাটছে । মঙ্গলবার (১৫ ফ্রের“য়ারি) সন্ধ্যা ৭ টায় বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডে এ ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিস ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে । পরিবারের মালামাল ও বসতঘর পুড়ে প্রায় ৩ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নূরজান বেগমের তিন সন্তান ও এক ছেলে প্রতিবন্ধী । তিন সন্তানের মধ্যে নূর ইসলাম ১৩ দিন আগে অসুস্থ হয়ে মারা যান। সেই শোকের মধ্যে তাদের বসতঘরে বৈদ্যুতিক সর্টসার্কিট থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আগুন লাগে। এলাকাবাসী ও কমলগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় প্রায় এক ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুন নিয়ন্ত্রণে যতক্ষণে আসে এর আগেই ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
আগুন লাগার বিষয়ে নূরজান বেগম বলেন, কিভাবে আগুন লাগলো আমরা জানি না। আমার ছেলে ১৩ দিন আগে মারা গেছে। ছেলের বউ এখন অন্তসত্ত্বা। আরেক ছেলে প্রতিবন্ধী তাদেরকে নিয়ে আমি এখন কোথায় যাবো। সন্তাান, বসতঘর ও মালামাল হারিযে নিঃস্ব হয়ে গেছেন বলে নূরজান বেগম জানান।
শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ বলেন, আগুন লাগার বিষয় খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক আমরা ছুটে যায় সে খুব অসহায় নূরজান বেগমের পরিবারকে সরকারি ভাবে সহযোগিতা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করবো।

এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আশেকুল হক বলেন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহায্যের জন্য রিপোর্ট দিলে আথিৃক পরিবারকে সহযোগিতা করা হবে।

ট্যাগঃ

কোটা সংস্কার এর দাবিতে আন্দলনরত শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত প্রধানমন্ত্রী: পলক

কমলগঞ্জে ছেলে হারানোর ১৩ দিনের মাতায় বসতঘর আগুনে পুড়ে ছাই, তিন লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৬:৩৫:৩৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২২
print news -

আলমগীর হোসেন ,কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জর শমশেরনগর ইউনিয়নের পুর্ব ভাদাইরদেউল এলাকার নূরজান বেগমের সন্তান হারানোর ১৩দিনের মাথায় আগুনেপুড়ে ছাই হয়ে গেলো বসতঘর । বসতঘর পুড়ে যাওয়া পরিবারের সদস্যদের খোলা আকাশের নিচে দিন কাটছে । মঙ্গলবার (১৫ ফ্রের“য়ারি) সন্ধ্যা ৭ টায় বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডে এ ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিস ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে । পরিবারের মালামাল ও বসতঘর পুড়ে প্রায় ৩ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নূরজান বেগমের তিন সন্তান ও এক ছেলে প্রতিবন্ধী । তিন সন্তানের মধ্যে নূর ইসলাম ১৩ দিন আগে অসুস্থ হয়ে মারা যান। সেই শোকের মধ্যে তাদের বসতঘরে বৈদ্যুতিক সর্টসার্কিট থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আগুন লাগে। এলাকাবাসী ও কমলগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় প্রায় এক ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুন নিয়ন্ত্রণে যতক্ষণে আসে এর আগেই ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
আগুন লাগার বিষয়ে নূরজান বেগম বলেন, কিভাবে আগুন লাগলো আমরা জানি না। আমার ছেলে ১৩ দিন আগে মারা গেছে। ছেলের বউ এখন অন্তসত্ত্বা। আরেক ছেলে প্রতিবন্ধী তাদেরকে নিয়ে আমি এখন কোথায় যাবো। সন্তাান, বসতঘর ও মালামাল হারিযে নিঃস্ব হয়ে গেছেন বলে নূরজান বেগম জানান।
শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ বলেন, আগুন লাগার বিষয় খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক আমরা ছুটে যায় সে খুব অসহায় নূরজান বেগমের পরিবারকে সরকারি ভাবে সহযোগিতা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করবো।

এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আশেকুল হক বলেন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহায্যের জন্য রিপোর্ট দিলে আথিৃক পরিবারকে সহযোগিতা করা হবে।