ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলা
  8. গণমাধ্যম
  9. জবস
  10. জাতীয়
  11. জোকস
  12. টপ নিউজ
  13. তথ্যপ্রযুক্তি
  14. ধর্ম
  15. প্রবাস

সিলেটে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চা-শ্রমিকদের ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে,মজুরি বৃদ্ধি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন ও ধর্মঘট চলবে

পঞ্চবাণী অনলাইন ডেস্ক
আপডেট : আগস্ট ১৭, ২০২২
Link Copied!

সিলেট অফিস:: মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে সিলেট শহরে বিক্ষোভ মিছিল করছেন চা-শ্রমিকেরা। আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মালনিছড়া চা-বাগানের শ্রমিকেরা মিছিল বের করেন। পরে লাক্কাতুরা চা-বাগানের শ্রমিকেরা ওই মিছিলে যোগ দেন।

৩০০ টাকা মজুরির দাবিতে বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে চট্টগ্রাম, সিলেটসহ সারা দেশের ২৩১টি বাগানের চা-শ্রমিকেরা ধর্মঘট পালন করছেন। গত শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেছেন তাঁরা। চা-শ্রমিকদের ধর্মঘট নিরসনে গতকাল মঙ্গলবার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে শ্রমিকনেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বাংলাদেশ শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক খালেদ মামুন চৌধুরী। তবে বৈঠকটি ফলপ্রসূ হয়নি। এ কারণে আজ ঢাকায় দুই পক্ষকে নিয়ে আলোচনা করবে শ্রম অধিদপ্তর। এদিকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শ্রমিকনেতারা।

আজ সকাল ১০টার দিকে মালনিছড়া চা-বাগানের মন্দিরের পাশে শ্রমিকদের জড়ো হতে দেখা যায়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে একদল শ্রমিক মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে মিছিল বের করেন। পরে লাক্কাতুরা চা-বাগানের শ্রমিকেরাও ওই মিছিলে যোগ দেন। মিছিলটি সিলেট বিমানবন্দর সড়ক হয়ে লাক্কাতুরা চা-বাগানের কার্যালয়ের সামনে এসে পৌঁছায়। সেখানে কিছু সময় অবস্থানের পর শ্রমিকেরা আবার মিছিল নিয়ে লাক্কাতুরা চা-বাগানের দিকে চলে যান।

কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া চা-শ্রমিক বিক্রম লোহার বলেন, ‘শ্রমিকেরা কাজ করতে প্রস্তুত। কিন্তু আমাদের প্রাপ্য মজুরি দিতে হবে। দীর্ঘদিন ধরে চা-শ্রমিকেরা বঞ্চিত হয়ে আসছেন। মজুরি, চিকিৎসা, শিক্ষা, বাসস্থানসহ বিভিন্ন দিকে আমাদের পিছিয়ে রাখা হয়েছে। এখন আমরা আমাদের প্রাপ্য দাবি চাইছি।’

আরেক চা-শ্রমিক মাধবী গোয়ালা বলেন, আন্দোলন-ধর্মঘটের কারণে মজুরি বন্ধ হয়ে আছে। ঘরে খাবার ফুরিয়ে এসেছে। কবে সমাধান আসবে জানা নেই। এরপরও আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় নিয়েছি।

চা-শ্রমিক ইউনিয়ন সিলেট ভ্যালির সভাপতি রাজু গোয়ালা বলেন, তিনি ঢাকার পথে রয়েছেন। গতকাল বৈঠকে কোনো সমাধান হয়নি। আজ সরকারপক্ষ, শ্রমিকপক্ষ, শ্রম অধিদপ্তর ও বাগানমালিকপক্ষ বৈঠকে বসবেন। তবে মজুরি বৃদ্ধি না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন ও ধর্মঘট চলবে।
এ ব্যাপারে সিলেটের বাগানমালিকপক্ষের বেশ কয়েকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কেউই বক্তব্য দিতে চাননি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চা-বাগানের এক কর্মকর্তা বলেন, পাঁচ দিন ধরে চা উৎপাদন বন্ধ হয়ে আছে। এতে চা-শিল্পে প্রভাব পড়ছে। এমনিতেই চা-শিল্প বিভিন্ন কারণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর মধ্যে শ্রমিকদের এমন ধর্মঘটে এই শিল্প খাত আরও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বাগানে নতুন পাতা গজিয়েছে। পাতাগুলো এখনই তোলা না হলে সেগুলো মান হারাবে। এ জন্য বিষয়টি এখনই সমাধান প্রয়োজন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।