০৪:৫৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আসছেন এমপিওভুক্তরা

print news -

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছেন  এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারী :

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের আগামী ১ জুলাই থেকে কার্যকর হতে যাওয়া সর্বজনীন পেনশন স্কিম প্রত্যয়ে তাদের অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ফলে বিদ্যমান অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্ট বিলুপ্ত হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র এসব তথ্য জানা গেছে। এ জন্য একটি প্রতিবেদন তৈরির লক্ষ্যে ১৬ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. রবিউল ইসলামকে আহ্বায়ক করে গঠিত ওই কমিটি আজ রোববার প্রথম সভায় বসবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠন করা ওই কমিটিতে শিক্ষার বিভিন্ন দপ্তর ও জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিল ও অবসর- সুবিধার বিদ্যমান জটিলতা স্থায়ীভাবে নিরসন এবং তাঁদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনতে একটি প্রতিবেদন তৈরি ও সুপারিশ করবে ওই কমিটি। এরপর সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বর্তমানে এমপিওভুক্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ হাজার ১৬৪টি। এর মধ্যে স্কুল-কলেজ ২০ হাজার ৪৩৭টি, বাকিগুলো কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মাদ্রাসা। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী আছেন সাড়ে ৫ লাখের মতো।
অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্ট্রের কি হবে?

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা অবসরের পর পেনশন সুবিধা পান না। পুরো চাকরি জীবনে অবসর ও কল্যাণ ফান্ডে বেতন থেকে ১০ শতাংশ (আগে ৬ শতাংশ ছিল) জমা রাখেন। এর মধ্যে অবসর বোর্ড কাটে ৬ শতাংশ ও কল্যাণ ট্রাস্ট কাটে ৪ শতাংশ। সেই আসল টাকা ও লাভের অংশের সঙ্গে সরকার কিছু টাকা প্রদান করে। অবসরে পর সেই টাকা পান শিক্ষক-কর্মচারীরা। কিন্তু টাকা উত্তোলনে শিক্ষকদের বছরের পর বছর অপেক্ষা করতে হয়। অনেক শিক্ষক এই টাকার অপেক্ষায় মারা যান। কিন্তু শিক্ষকদের সার্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনলে এই দুটি বোর্ড বাতিল হয়ে যাবে।

এমন প্রেক্ষাপটে গত ২২ ফেব্রুয়ারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের আর্থিক ও অবসরসুবিধা অবসরের ছয় মাসের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে রায় দেন হাইকোর্ট। তহবিলসংকটের কারণে অনেক শিক্ষক-কর্মচারী অবসর নেওয়ার পর তিন-চার বছর পরেও প্রাপ্য আর্থিক সুবিধা পান না বলে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির আলোচনায়ও উঠে আসে। এ অবস্থায় এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় এনে আর্থিক ও অবসরসুবিধাসংক্রান্ত জটিলতার নিরসন করতে চায় সরকার।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আসছেন এমপিওভুক্তরা

প্রকাশিত হয়েছেঃ ১১:০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ জুন ২০২৪
print news -

সর্বজনীন পেনশন স্কিমের অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছেন  এমপিওভুক্ত শিক্ষক কর্মচারী :

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের আগামী ১ জুলাই থেকে কার্যকর হতে যাওয়া সর্বজনীন পেনশন স্কিম প্রত্যয়ে তাদের অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ফলে বিদ্যমান অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্ট বিলুপ্ত হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র এসব তথ্য জানা গেছে। এ জন্য একটি প্রতিবেদন তৈরির লক্ষ্যে ১৬ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. রবিউল ইসলামকে আহ্বায়ক করে গঠিত ওই কমিটি আজ রোববার প্রথম সভায় বসবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠন করা ওই কমিটিতে শিক্ষার বিভিন্ন দপ্তর ও জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে। এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিল ও অবসর- সুবিধার বিদ্যমান জটিলতা স্থায়ীভাবে নিরসন এবং তাঁদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনতে একটি প্রতিবেদন তৈরি ও সুপারিশ করবে ওই কমিটি। এরপর সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বর্তমানে এমপিওভুক্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৯ হাজার ১৬৪টি। এর মধ্যে স্কুল-কলেজ ২০ হাজার ৪৩৭টি, বাকিগুলো কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও মাদ্রাসা। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী আছেন সাড়ে ৫ লাখের মতো।
অবসর ও কল্যাণ ট্রাস্ট্রের কি হবে?

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা অবসরের পর পেনশন সুবিধা পান না। পুরো চাকরি জীবনে অবসর ও কল্যাণ ফান্ডে বেতন থেকে ১০ শতাংশ (আগে ৬ শতাংশ ছিল) জমা রাখেন। এর মধ্যে অবসর বোর্ড কাটে ৬ শতাংশ ও কল্যাণ ট্রাস্ট কাটে ৪ শতাংশ। সেই আসল টাকা ও লাভের অংশের সঙ্গে সরকার কিছু টাকা প্রদান করে। অবসরে পর সেই টাকা পান শিক্ষক-কর্মচারীরা। কিন্তু টাকা উত্তোলনে শিক্ষকদের বছরের পর বছর অপেক্ষা করতে হয়। অনেক শিক্ষক এই টাকার অপেক্ষায় মারা যান। কিন্তু শিক্ষকদের সার্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনলে এই দুটি বোর্ড বাতিল হয়ে যাবে।

এমন প্রেক্ষাপটে গত ২২ ফেব্রুয়ারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের আর্থিক ও অবসরসুবিধা অবসরের ছয় মাসের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে রায় দেন হাইকোর্ট। তহবিলসংকটের কারণে অনেক শিক্ষক-কর্মচারী অবসর নেওয়ার পর তিন-চার বছর পরেও প্রাপ্য আর্থিক সুবিধা পান না বলে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির আলোচনায়ও উঠে আসে। এ অবস্থায় এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় এনে আর্থিক ও অবসরসুবিধাসংক্রান্ত জটিলতার নিরসন করতে চায় সরকার।