০৪:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারত কে দুটি বন্দর ব্যবহারে র অনুমতি দিয়ে ছে বাংলাদেশ

print news -

নিউজ ডেস্ক:  ভারতকে বাংলাদেশ তাদের দুটি বন্দর ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান।

এস জয়শঙ্কর বলেন, ভারতকে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার করার অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ। এর ফলে দুই দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় এখন নতুন দ্বার খুলে যাচ্ছে। বিশেষ করে উত্তরপূর্বভারতের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি ২৪ ঘণ্টায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে জয়শঙ্কর বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম তারা ভারতকে তাদের দেশের মধ্যে দিয়ে যেতে অনুমতি দিয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহারের অনুমতিও দিয়েছে। এটাই বাস্তব। বর্তমানে বাস ও ট্রেন চলছে দুই দেশের মধ্যে চলাচল করছে।

জয়শঙ্কর আরও বলেন, আগরতলা-আখাউড় রেল যোগাযোগের ফলে ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোর সঙ্গে যোগাযোগের সময় ও দূরত্ব কমে যাবে। বৃহত্তর বাজারে প্রবেশ ও পণ্য পরিবহন ও মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়বে।

সুত্র: ঢাকা পোষ্ট

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

ভারত কে দুটি বন্দর ব্যবহারে র অনুমতি দিয়ে ছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৪:৪১:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
print news -

নিউজ ডেস্ক:  ভারতকে বাংলাদেশ তাদের দুটি বন্দর ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান।

এস জয়শঙ্কর বলেন, ভারতকে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার করার অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ। এর ফলে দুই দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় এখন নতুন দ্বার খুলে যাচ্ছে। বিশেষ করে উত্তরপূর্বভারতের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি ২৪ ঘণ্টায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে জয়শঙ্কর বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম তারা ভারতকে তাদের দেশের মধ্যে দিয়ে যেতে অনুমতি দিয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহারের অনুমতিও দিয়েছে। এটাই বাস্তব। বর্তমানে বাস ও ট্রেন চলছে দুই দেশের মধ্যে চলাচল করছে।

জয়শঙ্কর আরও বলেন, আগরতলা-আখাউড় রেল যোগাযোগের ফলে ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলোর সঙ্গে যোগাযোগের সময় ও দূরত্ব কমে যাবে। বৃহত্তর বাজারে প্রবেশ ও পণ্য পরিবহন ও মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়বে।

সুত্র: ঢাকা পোষ্ট