০৮:৪১ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্যবসায়ীর ১৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখে উধাও অর্ধশতাধিক প্রবাসী

print news -

মালয়েশিয়ায় ইব্রাহিম মিয়া নামে এক প্রবাসী ব্যবসায়ীর বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখে উধাও হয়ে গেছেন অর্ধশতাধিক প্রবাসী। পাওনাদারের তালিকায় থাকাদের বেশি ভাগই বাংলাদেশি প্রবাসী। এছাড়া নেপালি এবং পাকিস্তানিও রয়েছেন।

শুক্রবার (১৬ জুলাই) রাত ৮টায় এলমা সার্ভিসের মালিক ইব্রাহিম মিয়া ও ম্যানেজার মালয়েশিয়ান নাগরিক নন্দ কুমার কুয়ালালামপুরে নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।

প্রতিষ্ঠানটির মালিক ইব্রাহিম মিয়া জানান, ২০১৭ সাল থেকে ব্যবসা শুরু করি। ২০১৯ সাল থেকে প্রবাসীরা এখান থেকে বাকিতে পণ্য নেওয়া শুরু করেন। ২০২০ সাল পর্যন্ত দোকানে ৮৩ হাজার রিংগিত (বাংলা মুদ্রায় ১৬ লাখ টাকা) বকেয়া পড়ে যায়।

এ ঘটনায় প্রায় অর্ধ শতাধিক ক্রেতা বকেয়া পরিশোধ না করে আত্মগোপন করেন। তাদের হদিস পাওয়া যায়নি। পরে পুলিশে রিপোর্ট করি। আমি পাওনা টাকা ফেরত দেওয়ার তাদের প্রতি আহ্বান জানাই।

সংবাদ সম্মেলনে নন্দ কুমার বলেন, ২০১৭ সাল থেকে এলমা সার্ভিস নিত্যপণ্যের দোকান পরিচালনা করে আসছে। বাংলাদেশি প্রবাসী ছাড়াও পাকিস্তানি ও নেপালি ক্রেতারা এখান থেকে পণ্য কিনতেন। এদের মধ্যে অনেকে দোকান থেকে পণ্য সামগ্রী বকেয়া নিয়ে মোটা অংকের বিল হওয়ায় অন্যত্র চলে গেছেন। অনেক চেষ্টা করেও তাদের হদিস পাওয়া যায়নি।

প্রবাসী ফজলুল হক জানান, মুদি দোকানের ব্যবসা করতে গেলে বাকি দিতেই হয়। আর সেটা করতে গিয়ে ইব্রাহিম ৮৩ হাজার রিংগিত হারাতে বসেছে। কুয়ালালামপুরে প্রবাসীরা এক সঙ্গে ১০ থেকে ২০ জন খাবার খান। মাস শেষে বেতন পেয়ে তারা দোকানের বকেয়া পরিশোধ করেন। যখন বিল বেশি হয়ে যায়, তখন টাকা পরিশোধ না করেই পালিয়ে যায়।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

ব্যবসায়ীর ১৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখে উধাও অর্ধশতাধিক প্রবাসী

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০২:৫২:৩০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুলাই ২০২১
print news -

মালয়েশিয়ায় ইব্রাহিম মিয়া নামে এক প্রবাসী ব্যবসায়ীর বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬ লাখ টাকা বকেয়া রেখে উধাও হয়ে গেছেন অর্ধশতাধিক প্রবাসী। পাওনাদারের তালিকায় থাকাদের বেশি ভাগই বাংলাদেশি প্রবাসী। এছাড়া নেপালি এবং পাকিস্তানিও রয়েছেন।

শুক্রবার (১৬ জুলাই) রাত ৮টায় এলমা সার্ভিসের মালিক ইব্রাহিম মিয়া ও ম্যানেজার মালয়েশিয়ান নাগরিক নন্দ কুমার কুয়ালালামপুরে নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।

প্রতিষ্ঠানটির মালিক ইব্রাহিম মিয়া জানান, ২০১৭ সাল থেকে ব্যবসা শুরু করি। ২০১৯ সাল থেকে প্রবাসীরা এখান থেকে বাকিতে পণ্য নেওয়া শুরু করেন। ২০২০ সাল পর্যন্ত দোকানে ৮৩ হাজার রিংগিত (বাংলা মুদ্রায় ১৬ লাখ টাকা) বকেয়া পড়ে যায়।

এ ঘটনায় প্রায় অর্ধ শতাধিক ক্রেতা বকেয়া পরিশোধ না করে আত্মগোপন করেন। তাদের হদিস পাওয়া যায়নি। পরে পুলিশে রিপোর্ট করি। আমি পাওনা টাকা ফেরত দেওয়ার তাদের প্রতি আহ্বান জানাই।

সংবাদ সম্মেলনে নন্দ কুমার বলেন, ২০১৭ সাল থেকে এলমা সার্ভিস নিত্যপণ্যের দোকান পরিচালনা করে আসছে। বাংলাদেশি প্রবাসী ছাড়াও পাকিস্তানি ও নেপালি ক্রেতারা এখান থেকে পণ্য কিনতেন। এদের মধ্যে অনেকে দোকান থেকে পণ্য সামগ্রী বকেয়া নিয়ে মোটা অংকের বিল হওয়ায় অন্যত্র চলে গেছেন। অনেক চেষ্টা করেও তাদের হদিস পাওয়া যায়নি।

প্রবাসী ফজলুল হক জানান, মুদি দোকানের ব্যবসা করতে গেলে বাকি দিতেই হয়। আর সেটা করতে গিয়ে ইব্রাহিম ৮৩ হাজার রিংগিত হারাতে বসেছে। কুয়ালালামপুরে প্রবাসীরা এক সঙ্গে ১০ থেকে ২০ জন খাবার খান। মাস শেষে বেতন পেয়ে তারা দোকানের বকেয়া পরিশোধ করেন। যখন বিল বেশি হয়ে যায়, তখন টাকা পরিশোধ না করেই পালিয়ে যায়।