১১:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বৈরাগীবাজারে বন্যার্তদের মাঝে প্রতিদিন খাবার বিতরণ করছেন যারা

print news -

চলমান বন্যায় বহু মানুষকে ঘর-বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় কেন্দ্রে উঠতে হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রে তাদেরকে মানবেতর জীবন-যাপন করতে হচ্ছে। যে সংখ্যক মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে রয়েছে তাদের খাদ্য ও ওষুধের সঙ্কট রয়েছে। বানভাসি মানুষদের এই দুর্ভোগ থেকে উদ্ধারের জন্য বৈরাগী বাজারের অন্যতম সংগঠন বৈরাগী বাজার যুব ফোরামের নেতৃত্বে,বৈরাগী বাজার এসোসিয়েশন অব ইউ এসএ এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে বৈরাগীবাজার এলাকার বৈরাগী বাজার সিনিয়র মাদ্রাসা, বৈরাগী বাজার উচ্চ বিদ্যালয়, আংগারজুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খসির সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে বানভাসি মানুষের জন্য সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ সামগ্রী পাশাপাশি প্রতিদিন আটশত মানুষের খাবার বিতরণ করে যাচ্ছে।IMG 20220630 WA0005 -
জানা গেছে, দ্বিতীয়বারের মতো বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলে বৈরাগী বাজার যুব ফোরামের নেতৃত্বে বৈরাগী বাজার এলাকার সকল যুব সমাজ, ছাত্রসমাজ,সেফ জোন এর সমন্বয়ে বন্যা দুর্গত মানুষের সাহায্যের জন্য এক মনিটরিং সেল গঠন করা হয় এবং সাহায্যের জন্য দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রবাসীদের সাহায্যের আবেদন করা হয়। বিভিন্ন দাতা সংস্থা বৈরাগী বাজার এলাকার প্রবাসী গণের আর্থিক অনুদানে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ সহ প্রতিদিনের খাবার বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়।
এতে করে বৈরাগীবাজার এসোসিয়েশন অব ইউএসএ এর অর্থায়নে দুপুরের খাবার ব্যবস্থা করা হয় অন্যদিকে বৈরাগী বাজার যুব সমাজের নেতৃত্বে দাতা সংস্থা ও প্রবাসীদের অর্থায়নে রাতের খাবার ব্যবস্থা করা হয়।
বৈরাগী বাজার যুব ফোরাম তার সাধ্যানুযায়ী এলাকার বন্যা কবলিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করে যাচ্ছে। এই উদ্যোগ দুর্যোগ শেষ না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলেও জানান সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
যুব ফোরামের অন্যতম সদস্য জাহিদ হাসান জুবের বলেন, আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে বিভিন্ন দাতা সংস্থা এবং প্রবাসীবৃন্দের সহযোগিতায় বন্যার শুরু থেকে শুকনো খাবার এবং প্রতিটা আশ্রয় কেন্দ্রে আমরা খাবার বিতরণ করে যাচ্ছি। বন্যা পরবর্তী সময়েও আমরা মানুষের পাশে থাকবো ইনশাল্লাহ। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এবং ঘরবাড়ি ভেঙ্গে গেছে নষ্ট হয়ে গেছে তাদের পাশে আমরা থাকবো। আমাদের পরিকল্পনা আছে বন্যা পরবর্তী সময়ে মানুষজন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হবে তাদের ঔষধের ব্যবস্থা করব, যাদের ঘর বাড়ি ভেঙ্গে গেছে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করব।
যেকোনো দুর্যোগ-দুর্ভোগে আত্মমানবতার সেবায় ঝাপিয়ে পড়া মানুষের একান্ত কর্তব্য। মানুষ মানুষের জন্য। আজকে যারা ভালো আছে আগামীকাল তারা যে দুর্ভোগে পতিত হবে না এটি বলা যায় না। তাই কোনো মানুষ বা জনগোষ্ঠী বিপদের সম্মুখীন হলে অন্য জনগোষ্ঠীর দায়িত্ব হচ্ছে দুর্ভোগে পড়া জনগোষ্ঠীর সাহায্যার্থে এগিয়ে আসা। চলমান বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বানভাসি মানুষ মানবেতর জীবন-যাপন করছে। আজকে তাদের পাশে সমাজের সামর্থ্যবান মানুষদের দাঁড়াতে হবে। বৈরাগী বাজার এলাকার বিভিন্ন দাতা সংস্থা সামাজিক রাজনৈতিক সংগঠন এবং প্রবাসীব্যক্তিবর্গ দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান করছি।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

বৈরাগীবাজারে বন্যার্তদের মাঝে প্রতিদিন খাবার বিতরণ করছেন যারা

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৭:৫১:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ জুলাই ২০২২
print news -

চলমান বন্যায় বহু মানুষকে ঘর-বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় কেন্দ্রে উঠতে হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রে তাদেরকে মানবেতর জীবন-যাপন করতে হচ্ছে। যে সংখ্যক মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে রয়েছে তাদের খাদ্য ও ওষুধের সঙ্কট রয়েছে। বানভাসি মানুষদের এই দুর্ভোগ থেকে উদ্ধারের জন্য বৈরাগী বাজারের অন্যতম সংগঠন বৈরাগী বাজার যুব ফোরামের নেতৃত্বে,বৈরাগী বাজার এসোসিয়েশন অব ইউ এসএ এবং প্রবাসীদের অর্থায়নে বৈরাগীবাজার এলাকার বৈরাগী বাজার সিনিয়র মাদ্রাসা, বৈরাগী বাজার উচ্চ বিদ্যালয়, আংগারজুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খসির সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে বানভাসি মানুষের জন্য সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ সামগ্রী পাশাপাশি প্রতিদিন আটশত মানুষের খাবার বিতরণ করে যাচ্ছে।IMG 20220630 WA0005 -
জানা গেছে, দ্বিতীয়বারের মতো বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলে বৈরাগী বাজার যুব ফোরামের নেতৃত্বে বৈরাগী বাজার এলাকার সকল যুব সমাজ, ছাত্রসমাজ,সেফ জোন এর সমন্বয়ে বন্যা দুর্গত মানুষের সাহায্যের জন্য এক মনিটরিং সেল গঠন করা হয় এবং সাহায্যের জন্য দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রবাসীদের সাহায্যের আবেদন করা হয়। বিভিন্ন দাতা সংস্থা বৈরাগী বাজার এলাকার প্রবাসী গণের আর্থিক অনুদানে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ সহ প্রতিদিনের খাবার বিতরণের ব্যবস্থা করা হয়।
এতে করে বৈরাগীবাজার এসোসিয়েশন অব ইউএসএ এর অর্থায়নে দুপুরের খাবার ব্যবস্থা করা হয় অন্যদিকে বৈরাগী বাজার যুব সমাজের নেতৃত্বে দাতা সংস্থা ও প্রবাসীদের অর্থায়নে রাতের খাবার ব্যবস্থা করা হয়।
বৈরাগী বাজার যুব ফোরাম তার সাধ্যানুযায়ী এলাকার বন্যা কবলিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করে যাচ্ছে। এই উদ্যোগ দুর্যোগ শেষ না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলেও জানান সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
যুব ফোরামের অন্যতম সদস্য জাহিদ হাসান জুবের বলেন, আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে বিভিন্ন দাতা সংস্থা এবং প্রবাসীবৃন্দের সহযোগিতায় বন্যার শুরু থেকে শুকনো খাবার এবং প্রতিটা আশ্রয় কেন্দ্রে আমরা খাবার বিতরণ করে যাচ্ছি। বন্যা পরবর্তী সময়েও আমরা মানুষের পাশে থাকবো ইনশাল্লাহ। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এবং ঘরবাড়ি ভেঙ্গে গেছে নষ্ট হয়ে গেছে তাদের পাশে আমরা থাকবো। আমাদের পরিকল্পনা আছে বন্যা পরবর্তী সময়ে মানুষজন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হবে তাদের ঔষধের ব্যবস্থা করব, যাদের ঘর বাড়ি ভেঙ্গে গেছে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করব।
যেকোনো দুর্যোগ-দুর্ভোগে আত্মমানবতার সেবায় ঝাপিয়ে পড়া মানুষের একান্ত কর্তব্য। মানুষ মানুষের জন্য। আজকে যারা ভালো আছে আগামীকাল তারা যে দুর্ভোগে পতিত হবে না এটি বলা যায় না। তাই কোনো মানুষ বা জনগোষ্ঠী বিপদের সম্মুখীন হলে অন্য জনগোষ্ঠীর দায়িত্ব হচ্ছে দুর্ভোগে পড়া জনগোষ্ঠীর সাহায্যার্থে এগিয়ে আসা। চলমান বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বানভাসি মানুষ মানবেতর জীবন-যাপন করছে। আজকে তাদের পাশে সমাজের সামর্থ্যবান মানুষদের দাঁড়াতে হবে। বৈরাগী বাজার এলাকার বিভিন্ন দাতা সংস্থা সামাজিক রাজনৈতিক সংগঠন এবং প্রবাসীব্যক্তিবর্গ দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান করছি।