০৭:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বনাথ উপজেলায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা সেবার উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

print news -

বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বৈকালিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা সেবার উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি।

বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের বৈকালিক চেম্বার’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি। সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা  বা ‘ইনস্টিটিউশনাল প্র্যাকটিস’ ৩০ মার্চ থেকে শুরু হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের বৈকালিক চেম্বারের ফি নির্ধারণ করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

দেশের সরকারি হাসপাতালে ফি দিয়ে রোগীরা এখন থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের থেকে বৈকালিক সেবা পাবেন। প্রাথমিকভাবে ১২টি জেলা হাসপাতাল ও ৩৯ টি উপজেলা হাতপাতালে বিকাল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত সরকার নির্ধানিত ফি প্রদান পূর্বক ইস্টিটিউশনাল প্রাকটিসের উদ্বোধন করেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, প্রাথমিকভাবে একজন জ্যেষ্ঠ চিকিৎসকের (অধ্যাপক) ৫০০ টাকা ফি (ভিজিট), তবে তিনি পাবেন ৪০০ টাকা। সিনিয়র কনসালটেন্ট পাবেন ৩০০ টাকা। সহকারী অধ্যাপক পাবেন ২০০ টাকা। তাকে যারা সহযোগিতা করবেন, তারা পাবেন ৫০ টাকা করে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ‘সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা’ সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ৩০ মার্চ থেকে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে এই প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস চালু করার চেষ্টা করছি। প্রথমে কয়েকটি জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে এ কার্যক্রম শুরু করবো।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে অনুষ্ঠিত সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুসরাত জাহান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.  মো: দেলওয়ার হোসেন সুমন, ডা. তপজিত ভট্টাচার্য, জুনিয়র কনসালট্যান্ট এনেসথেসিয়া রাজীব বৈষ্ণব, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মুজতবা ইবনে আহবাব, সহকারী সার্জন মো. আলী আশরাফ, গোলাম মুর্তুজা খান, মো. মামুন মিয়া, সাংবাদিক বদরুল ইসলাম মহসিন, জামাল মিয়া, মেডিকেল অফিসার সীমান্ত কর্মকার, নার্সিং সুপারভাইজার মো. আব্দুশ শাকুর, সিনিয়র নার্স আমেনা খাতুন, তহমিয়া আক্তার, স্বাস্থ্য সহকারী দিবাংশু লাল গুন, মো. খছরু মিয়া, যিশু চন্দ্র দাশ, প্রধান সহকারী আলী আহমদ, অফিস সহকারী মো. মুহিবুর রহমান, মেডিকেল টেকনোলজিস মো. হিরন মিয়া, ফার্মাসিষ্ট হেলাল মিয়া, ল্যাব আমিনুল ইসলাম সোহাগসহ চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাচারী এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার  সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: দেলোয়ার হোসেন সুমন বলেন, ইসিজি,আল্ট্রাসনোগ্রাফি সহ সকল প্রকার প্যাথলজি পরীক্ষা এই সময়ে সরকার নির্ধারিত অত্যন্ত স্বল্প খরচে করা হবে।

আশা করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রীর এই উদ্যোগ সফল হবে। বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ অফিস সময়ের বাইরে এই বৈকালিক চ্যাম্বারের মাধ্যমে রোগীদের স্বল্পমূল্যে আরো বেশি পরিমানে স্বাস্থ্য সেবা দিতে পারবেন।

আরোও জানতে ভিজিট করুন: 

জনপ্রিয় সংবাদ

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বিশ্বনাথ উপজেলায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা সেবার উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০১:১০:৩৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩
print news -

বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বৈকালিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা সেবার উদ্বোধন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি।

বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের বৈকালিক চেম্বার’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি। সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা  বা ‘ইনস্টিটিউশনাল প্র্যাকটিস’ ৩০ মার্চ থেকে শুরু হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের বৈকালিক চেম্বারের ফি নির্ধারণ করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

দেশের সরকারি হাসপাতালে ফি দিয়ে রোগীরা এখন থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের থেকে বৈকালিক সেবা পাবেন। প্রাথমিকভাবে ১২টি জেলা হাসপাতাল ও ৩৯ টি উপজেলা হাতপাতালে বিকাল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত সরকার নির্ধানিত ফি প্রদান পূর্বক ইস্টিটিউশনাল প্রাকটিসের উদ্বোধন করেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, প্রাথমিকভাবে একজন জ্যেষ্ঠ চিকিৎসকের (অধ্যাপক) ৫০০ টাকা ফি (ভিজিট), তবে তিনি পাবেন ৪০০ টাকা। সিনিয়র কনসালটেন্ট পাবেন ৩০০ টাকা। সহকারী অধ্যাপক পাবেন ২০০ টাকা। তাকে যারা সহযোগিতা করবেন, তারা পাবেন ৫০ টাকা করে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ‘সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা’ সংক্রান্ত বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ৩০ মার্চ থেকে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে এই প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস চালু করার চেষ্টা করছি। প্রথমে কয়েকটি জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে এ কার্যক্রম শুরু করবো।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হল রুমে অনুষ্ঠিত সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নুসরাত জাহান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.  মো: দেলওয়ার হোসেন সুমন, ডা. তপজিত ভট্টাচার্য, জুনিয়র কনসালট্যান্ট এনেসথেসিয়া রাজীব বৈষ্ণব, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মুজতবা ইবনে আহবাব, সহকারী সার্জন মো. আলী আশরাফ, গোলাম মুর্তুজা খান, মো. মামুন মিয়া, সাংবাদিক বদরুল ইসলাম মহসিন, জামাল মিয়া, মেডিকেল অফিসার সীমান্ত কর্মকার, নার্সিং সুপারভাইজার মো. আব্দুশ শাকুর, সিনিয়র নার্স আমেনা খাতুন, তহমিয়া আক্তার, স্বাস্থ্য সহকারী দিবাংশু লাল গুন, মো. খছরু মিয়া, যিশু চন্দ্র দাশ, প্রধান সহকারী আলী আহমদ, অফিস সহকারী মো. মুহিবুর রহমান, মেডিকেল টেকনোলজিস মো. হিরন মিয়া, ফার্মাসিষ্ট হেলাল মিয়া, ল্যাব আমিনুল ইসলাম সোহাগসহ চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাচারী এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার  সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: দেলোয়ার হোসেন সুমন বলেন, ইসিজি,আল্ট্রাসনোগ্রাফি সহ সকল প্রকার প্যাথলজি পরীক্ষা এই সময়ে সরকার নির্ধারিত অত্যন্ত স্বল্প খরচে করা হবে।

আশা করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রীর এই উদ্যোগ সফল হবে। বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ অফিস সময়ের বাইরে এই বৈকালিক চ্যাম্বারের মাধ্যমে রোগীদের স্বল্পমূল্যে আরো বেশি পরিমানে স্বাস্থ্য সেবা দিতে পারবেন।

আরোও জানতে ভিজিট করুন: