০৪:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজারে সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন

print news -

বিয়ানীবাজারে সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন

সুস্থ দেহে বেঁচে থাকার আকুতি নিয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন। সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার ৫নং কুড়ার বাজার ইউনিয়নের হাতিটিটিলা গ্রামের মোহাম্মদ শাহিন আহমদ প্রায় ৬ বছর যাবৎ বিরল ক্যান্সারে আক্রান্ত। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে কোন উন্নতি না হলে ভারতে চিকিৎসা গ্রহণ করেন।

চিকিৎসকগন পরামর্শ দিয়েছেন ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য। কিন্তু সহায় সম্বলহীন নিরুপায় হয়ে বিনা চিকিৎসায় বাড়িতেই আছেন। এমতবস্থায় তিনি ও তার পরিবার চিকিৎসা ব্যয়ভার বহন করতে অক্ষম। তাই সমাজের বৃত্তবানদের প্রতি মানবিক সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন তিনি ও তার পরিবার। নিম্নে উপস্থাপন করা হলো তাহার স্বহস্তে লিখিত আবেদন।।

জনাব/জনাবা : বিনীত নিবেদন এই যে, আমি মুহাম্মদ শাহীন আহমদ, ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা, মিউনিসিপ্যালিটি ভূমি অফিস, সিলেট মহানগর রাজস্ব সার্কেল, সিলেট এ কর্মরত আছি। বেশ কিছুদিন যাবৎ শারীরিক অসুস্থতার জন্য ডাক্তারের নিকট গেলে, পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে, আমি ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছি বলে আমার চিকিৎসক আমাকে জানান। এরই প্রেক্ষিতে ২০১৯ সালে ভারতের তামিলনাড়ুর ভেলোরে অবস্থিত সিএমসি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গেলে, নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সেখানকার চিকিৎসকগণ জানান যে, আমি অত্যন্ত বিরল ধরণের ব্লাড ক্যানসার মাইলোফাইব্রোসিস এ আক্রান্ত।

এর পর থেকে আমি ভারতের সিএমসি হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের ডাক্তার আবি আব্রাহাম এর তত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করে আসছি। গত ডিসেম্বর/২০২৩ সালে আমি পুনরায় ঐ হাসপাতালে গেলে, আমার শেষ চিকিৎসা হিসাবে, একমাত্র বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য সেখানকার চিকিৎসক পরামর্শ প্রদান করেন। তাদের এই পরামর্শের ভিত্তিতে আমি ভারতের দিল্লীতে ফরটিস হাসপাতালের ডাক্তার রাহুল ভার্গাবার শরণাপন্ন হলে, তিনিও একই মতামত ব্যক্ত করে দ্রুততম সময়ে অর্থাৎ আগামী ৬ মাসের মধ্যে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য বলেন।

বর্তমানে দ্রুতঃই আমার শারীরীক অবস্থার ক্রমাবনতি হচ্ছে। নিয়মিত অফিস করা ও আমার পক্ষে দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য আমি ভারতের উল্লেখিত ফরটিস হাসপাতাল ছাড়া ও এ্যাপোলো, টাটা, আর্তেমিস, জাসলুক ইত্যাদি হাসপাতালের সাথে ই-মেইল/হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ করলে, বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য আনুমানিক ৩৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার ইউ এস ডলার যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ৪০ লক্ষ থেকে ৪৫ লক্ষ টাকা সম্ভাব্য ব্যয় হবে মর্মে সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল সমূহ থেকে সম্যক ধারণা প্রদান করা হয়।

২০১৮ সাল থেকে এ রোগের চিকিৎসার জন্য আমার এবং পরিবারের সঞ্চিত অর্থের প্রায় পুরোটাই খরচ করে প্রায় নিঃস্ব হয়ে পড়ায়, বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টের এই বিশাল ব্যয় নির্বাহ করা আমার বা আমার পরিবারের পক্ষে বর্তমানে দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। শুধুমাত্র বেঁচে থাকার তাগিদে, এখন প্রতিমাসে আমাকে প্রায় ১ লক্ষ টাকার ঔষধ নিয়মিত গ্রহণ করতে হচ্ছে। আপনাদেরই একজন সহকর্মী, ভাই ও বন্ধু হিসাবে, দেশ, সমাজ তথা পরিবারের জন্য হলেও আমি আরও কিছুদিন বেঁচে থাকতে চাই।

পরম করুণাময় স্রষ্টার উপর পূর্ণ আস্থা রেখে, আমার দৃঢ় বিশ্বাস, আপনাদের সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা পেলে, আপনাদের দোয়া/আশীর্বাদে বর্তমান এই দুঃসময় কাটিয়ে উঠে এই দুর্ভাগা আমি আরও কিছুদিন আপনাদের মধ্যে বেঁচে থাকতে পারবো। তাই একান্ত মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে একজন অসহায় মানুষকে বাচিয়ে রাখতে, বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের বিশাল ব্যয় নির্বাহের জন্য আর্থিক অক্ষমতাকে, সক্ষমতায় রূপান্তরের খাতিরে আমি আপনাদের সকলের ঐকান্তিক ও সর্বাত্মক সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করছি। আপনাদের সহযোগিতায় আজীবন আমি কৃতজ্ঞতাপাশে আবদ্ধ থাকবো।

এমতাবস্থায়, আমার সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনাক্রমে, একান্ত মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে, আমাকে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে, বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের ব্যয় নির্বাহের প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করার জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি। আর্থিক সহায়তার জন্য আমার ব্যাংক একাউন্ট নম্বরঃ ৫৬২৭৫০১০২০১৪৭, সোনালী ব্যাংক লিঃ সিলেট কর্পোরেট শাখা।

তারিখঃ ০৩/০৬/২০২৪ খ্রিঃ

বিনীত

মুহাম্মদ শাহীন আহমদ ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা,
মিউনিসিপ্যালিটি ভূমি অফিস,
সিলেট মহানগর রাজস্ব সার্কেল।

আবেদনখানা মানবিক দিক বিবেচনায় সর্বাত্বক সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

FB IMG 1717783410453 -

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

বিয়ানীবাজারে সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৭:০৫:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪
print news -

বিয়ানীবাজারে সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন

সুস্থ দেহে বেঁচে থাকার আকুতি নিয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত সরকারি চাকরিজীবীর মানবিক সাহায্যের আবেদন। সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার ৫নং কুড়ার বাজার ইউনিয়নের হাতিটিটিলা গ্রামের মোহাম্মদ শাহিন আহমদ প্রায় ৬ বছর যাবৎ বিরল ক্যান্সারে আক্রান্ত। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে কোন উন্নতি না হলে ভারতে চিকিৎসা গ্রহণ করেন।

চিকিৎসকগন পরামর্শ দিয়েছেন ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য। কিন্তু সহায় সম্বলহীন নিরুপায় হয়ে বিনা চিকিৎসায় বাড়িতেই আছেন। এমতবস্থায় তিনি ও তার পরিবার চিকিৎসা ব্যয়ভার বহন করতে অক্ষম। তাই সমাজের বৃত্তবানদের প্রতি মানবিক সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন তিনি ও তার পরিবার। নিম্নে উপস্থাপন করা হলো তাহার স্বহস্তে লিখিত আবেদন।।

জনাব/জনাবা : বিনীত নিবেদন এই যে, আমি মুহাম্মদ শাহীন আহমদ, ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা, মিউনিসিপ্যালিটি ভূমি অফিস, সিলেট মহানগর রাজস্ব সার্কেল, সিলেট এ কর্মরত আছি। বেশ কিছুদিন যাবৎ শারীরিক অসুস্থতার জন্য ডাক্তারের নিকট গেলে, পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে, আমি ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছি বলে আমার চিকিৎসক আমাকে জানান। এরই প্রেক্ষিতে ২০১৯ সালে ভারতের তামিলনাড়ুর ভেলোরে অবস্থিত সিএমসি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য গেলে, নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সেখানকার চিকিৎসকগণ জানান যে, আমি অত্যন্ত বিরল ধরণের ব্লাড ক্যানসার মাইলোফাইব্রোসিস এ আক্রান্ত।

এর পর থেকে আমি ভারতের সিএমসি হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের ডাক্তার আবি আব্রাহাম এর তত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করে আসছি। গত ডিসেম্বর/২০২৩ সালে আমি পুনরায় ঐ হাসপাতালে গেলে, আমার শেষ চিকিৎসা হিসাবে, একমাত্র বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য সেখানকার চিকিৎসক পরামর্শ প্রদান করেন। তাদের এই পরামর্শের ভিত্তিতে আমি ভারতের দিল্লীতে ফরটিস হাসপাতালের ডাক্তার রাহুল ভার্গাবার শরণাপন্ন হলে, তিনিও একই মতামত ব্যক্ত করে দ্রুততম সময়ে অর্থাৎ আগামী ৬ মাসের মধ্যে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য বলেন।

বর্তমানে দ্রুতঃই আমার শারীরীক অবস্থার ক্রমাবনতি হচ্ছে। নিয়মিত অফিস করা ও আমার পক্ষে দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য আমি ভারতের উল্লেখিত ফরটিস হাসপাতাল ছাড়া ও এ্যাপোলো, টাটা, আর্তেমিস, জাসলুক ইত্যাদি হাসপাতালের সাথে ই-মেইল/হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ করলে, বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের জন্য আনুমানিক ৩৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার ইউ এস ডলার যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ৪০ লক্ষ থেকে ৪৫ লক্ষ টাকা সম্ভাব্য ব্যয় হবে মর্মে সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল সমূহ থেকে সম্যক ধারণা প্রদান করা হয়।

২০১৮ সাল থেকে এ রোগের চিকিৎসার জন্য আমার এবং পরিবারের সঞ্চিত অর্থের প্রায় পুরোটাই খরচ করে প্রায় নিঃস্ব হয়ে পড়ায়, বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টের এই বিশাল ব্যয় নির্বাহ করা আমার বা আমার পরিবারের পক্ষে বর্তমানে দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। শুধুমাত্র বেঁচে থাকার তাগিদে, এখন প্রতিমাসে আমাকে প্রায় ১ লক্ষ টাকার ঔষধ নিয়মিত গ্রহণ করতে হচ্ছে। আপনাদেরই একজন সহকর্মী, ভাই ও বন্ধু হিসাবে, দেশ, সমাজ তথা পরিবারের জন্য হলেও আমি আরও কিছুদিন বেঁচে থাকতে চাই।

পরম করুণাময় স্রষ্টার উপর পূর্ণ আস্থা রেখে, আমার দৃঢ় বিশ্বাস, আপনাদের সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা পেলে, আপনাদের দোয়া/আশীর্বাদে বর্তমান এই দুঃসময় কাটিয়ে উঠে এই দুর্ভাগা আমি আরও কিছুদিন আপনাদের মধ্যে বেঁচে থাকতে পারবো। তাই একান্ত মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে একজন অসহায় মানুষকে বাচিয়ে রাখতে, বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের বিশাল ব্যয় নির্বাহের জন্য আর্থিক অক্ষমতাকে, সক্ষমতায় রূপান্তরের খাতিরে আমি আপনাদের সকলের ঐকান্তিক ও সর্বাত্মক সক্রিয় সহযোগিতা কামনা করছি। আপনাদের সহযোগিতায় আজীবন আমি কৃতজ্ঞতাপাশে আবদ্ধ থাকবো।

এমতাবস্থায়, আমার সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনাক্রমে, একান্ত মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে, আমাকে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে, বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টের ব্যয় নির্বাহের প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করার জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি। আর্থিক সহায়তার জন্য আমার ব্যাংক একাউন্ট নম্বরঃ ৫৬২৭৫০১০২০১৪৭, সোনালী ব্যাংক লিঃ সিলেট কর্পোরেট শাখা।

তারিখঃ ০৩/০৬/২০২৪ খ্রিঃ

বিনীত

মুহাম্মদ শাহীন আহমদ ইউনিয়ন ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা,
মিউনিসিপ্যালিটি ভূমি অফিস,
সিলেট মহানগর রাজস্ব সার্কেল।

আবেদনখানা মানবিক দিক বিবেচনায় সর্বাত্বক সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

FB IMG 1717783410453 -