১২:৫১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্টিত হয়েছে

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র ফারুকুল হক

print news -

 রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্টিত

সুরের ভুবনে যেন এক রঙিন ভোরের স্বপ্নসারথির নাম পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়। শিল্পীদের ঐক্যবদ্ধ করার প্রয়াসে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার বৈরাগীবাজারে জন্ম নেয় সংগঠনটি। ২০ বছর ধরে শিল্পীদের সুস্থ ধারার বাংলা সংগীতচর্চা নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটি। পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড ,সরকারি-বেসরকারি সকল দিবস পালন, মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা সহ পরবর্তী প্রজন্মের মাঝে সংগীত চর্চা ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়ের উদ্যোগে বিয়ানীবাজারের গুণীজনদের জীবন-কর্মের প্রতি সম্মান জানাতে ৯ মার্চ (শনিবার)  বিয়ানীবাজার উপজেলা অডিটোরিয়াম হলে রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা-২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ানীবাজারের গুণীজন

বিয়ানীবাজার জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ ওমর ও সুমন আহমদ এর যৌথ সঞ্চালনায়,সংগঠনিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সংগীত প্রশিক্ষক শিল্পী এস এম মানিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র ফারুকুল হক।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইচ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন, বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি সজিব ভট্টাচার্য।

ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক, রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের বিভিন্ন অঙ্গনে অবদানের জন্য (মুক্তিযোদ্ধা ও সংগঠক/কবি/ সমাজ সেবা/ কথাসাহিত্য/গবেষণা/ সংগীতশিল্পী/গীতিকার/ সাংবাদিকতা) বিভাগে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বক্তব্য দেন আর অনুষ্ঠানস্থল ছিল আমন্ত্রিত অতিথিতে পূর্ণ। অনুষ্ঠানে যারা সংবর্ধিত হয়েছেন:

পঞ্চখন্ডের পথ ও পথকৃৎ গ্রন্থের লেকক, গবেষনা কর্মে বিশেষ অবদানের  জন্য সংবর্ধিত হলেন আতাউর রহমান, বিদেশ বিভূঁইয়ে বসবাস করে দেশ তথা এলাকার মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন মনজ্জির আলী শেঠ। মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে দেশ স্বাধীনে সক্রিয় ভুমিকা রাখা এবং বিয়ানীবাজার মুক্ত দিবসে স্বাধীন বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা উত্তোলনে অবদান রাখায় সংবর্ধিত হয়েছেন,শফিকুল ইসলাম।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে কাজ করাসহ রাজনীতিতে অসামান্য অবদান রাখায় স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,এম এ আজিজ (মরণোত্তর)।

মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন দক্ষ সংগঠক এবং সাহিত্য রচনায় অনবদ্য অবদান রাখার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন আকদ্দস সিরাজুল ইসলাম(মরণোত্তর),মহান মুক্তিযুদ্ধ যুদ্ধে একজন সক্রিয় যোদ্ধা হিসেবে অংশ গ্রহণ এবং লেখনির মাধ্যমে সমাজ উন্নয়নে আমৃত্যু ভুমিকা পালন করায় সংবর্ধিত হয়েছেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালিক ফারুক(মরণোত্তর),মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে  একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে কাজ করা, রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক ও সংস্কারক হিসেবে আমৃত্যু কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,ফয়জুর রহমান ফৈয়াজ (মরণোত্তর)’ সমাজ সেবক হিসেবে এলাকার মানুষের ভাগ্যন্নোয়নে আমৃত্যু কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন হারুনুর রশিদ চেয়ারম্যান (মরণোত্তর)।বিয়ানীবাজার

সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে আমৃত্যু সমাজ উন্নয়নে কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন আব্দুর রউফ খান মিষ্টু (মরণোত্তর),বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত শিল্পী হিসেবে পল্লীগীতি গানের মাধ্যমে সমাজ সংস্কারে অনবদ্য ভূমিকা পালন করায় সংবর্ধিত হয়েছেন আব্দুন নুর,একজন সফল সংগীত সাধক হিসেবে সমাজের অসংগতি ফুটিয়ে তুলতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন বাউল হেলাল উদ্দিন সরকার,মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্ধুদ্ধ করতে আমৃত্যু গান গেয়ে নিজের জীবন উৎসর্গ করার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন শহীদ কমর উদ্দিন(মরণোত্তর),সাহিত্য রচনা ও গবেষণাকর্মে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন হাবিব আহমদ দত্তচৌধুরী,কবিতা লেখনির মাধ্যমে বিশ্বময় বাঙ্গালী জাতির হৃদয়কে জাগ্রত করতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,ওয়ালি মাহমুদ।

রাজনীতি, সমাজ সেবা এবং গান লেখনীর মাধ্যমে সমাজ সংস্কারে আমৃত্যু অগ্রণী ভুমিকা রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন, শেখ ওয়াহিদুর রহমান (মরণোত্তর),জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে এলাকায় সম্মানবৃদ্ধিসহ মানব সেবায় কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন এম. হাসানুল হক উজ্জ্বল,বিদেশ বিভূঁইয়ে বসবাস করে দেশ তথা এলাকার মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন মুহিবুর রহমান মুহিব।

সফল সংগীত সাধক হিসেবে সমাজের অসংগতি ফুটিয়ে তুলতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন বেলাল উদ্দিন,বাংলা সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সংবর্ধিত হয়েছেন আজিজ ইবনে গণি, সাহিত্য রচনা ও গবেষনা কর্মে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সংবর্ধিত হয়েছেন ফজলুল হক(মরণোত্তর),ও গৌছ উদ্দিন খান প্রমুখ।10501 -

পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়ে প্রতিষ্ঠাতা ও সংগীত প্রশিক্ষক শিল্পী এস এম মানিক বলেন,যোগ্য ব্যক্তিকে যোগ্য সম্মান করতে না পারলে সমাজে গুণীজন সৃষ্টি হয় না। বিয়ানীবাজারের প্রত্যেকেই সমাজ উন্নয়নের কারিগর তাদের সংবর্ধিত করার পাশাপাশি গুণীজনদের সংবর্ধনার মাধ্যমে যে অনুপ্রেরণা দিয়েছে, তাতে তাদের মধ্যে আগামীতে দেশ ও দেশমাতৃকার কল্যাণে কাজ করার আগ্রহ সৃষ্টি হবে।

শেষে মনজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন,বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত শিল্পী বাউল হেলাল উদ্দিন সরকার,গীতিকার ও শিল্পী আয়াজ বাঙ্গালী, শিপা দেওয়ান, ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

মুক্তিযুদ্ধা সংগঠক আব্দুর রাজ্জাকের ইন্তেকাল।। বিশিষ্টজনের শোক প্রকাশ

রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্টিত হয়েছে

প্রকাশিত হয়েছেঃ ১২:৩২:৩০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১১ মার্চ ২০২৪
print news -

 রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্টিত

সুরের ভুবনে যেন এক রঙিন ভোরের স্বপ্নসারথির নাম পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়। শিল্পীদের ঐক্যবদ্ধ করার প্রয়াসে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার বৈরাগীবাজারে জন্ম নেয় সংগঠনটি। ২০ বছর ধরে শিল্পীদের সুস্থ ধারার বাংলা সংগীতচর্চা নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটি। পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড ,সরকারি-বেসরকারি সকল দিবস পালন, মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা সহ পরবর্তী প্রজন্মের মাঝে সংগীত চর্চা ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়ের উদ্যোগে বিয়ানীবাজারের গুণীজনদের জীবন-কর্মের প্রতি সম্মান জানাতে ৯ মার্চ (শনিবার)  বিয়ানীবাজার উপজেলা অডিটোরিয়াম হলে রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের গুণীজন সংবর্ধনা-২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ানীবাজারের গুণীজন

বিয়ানীবাজার জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ ওমর ও সুমন আহমদ এর যৌথ সঞ্চালনায়,সংগঠনিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সংগীত প্রশিক্ষক শিল্পী এস এম মানিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র ফারুকুল হক।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইচ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন, বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাবের সভাপতি সজিব ভট্টাচার্য।

ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক, রত্নগর্ভা বিয়ানীবাজারের বিভিন্ন অঙ্গনে অবদানের জন্য (মুক্তিযোদ্ধা ও সংগঠক/কবি/ সমাজ সেবা/ কথাসাহিত্য/গবেষণা/ সংগীতশিল্পী/গীতিকার/ সাংবাদিকতা) বিভাগে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বক্তব্য দেন আর অনুষ্ঠানস্থল ছিল আমন্ত্রিত অতিথিতে পূর্ণ। অনুষ্ঠানে যারা সংবর্ধিত হয়েছেন:

পঞ্চখন্ডের পথ ও পথকৃৎ গ্রন্থের লেকক, গবেষনা কর্মে বিশেষ অবদানের  জন্য সংবর্ধিত হলেন আতাউর রহমান, বিদেশ বিভূঁইয়ে বসবাস করে দেশ তথা এলাকার মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন মনজ্জির আলী শেঠ। মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করে দেশ স্বাধীনে সক্রিয় ভুমিকা রাখা এবং বিয়ানীবাজার মুক্ত দিবসে স্বাধীন বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকা উত্তোলনে অবদান রাখায় সংবর্ধিত হয়েছেন,শফিকুল ইসলাম।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর হিসেবে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে কাজ করাসহ রাজনীতিতে অসামান্য অবদান রাখায় স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,এম এ আজিজ (মরণোত্তর)।

মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন দক্ষ সংগঠক এবং সাহিত্য রচনায় অনবদ্য অবদান রাখার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন আকদ্দস সিরাজুল ইসলাম(মরণোত্তর),মহান মুক্তিযুদ্ধ যুদ্ধে একজন সক্রিয় যোদ্ধা হিসেবে অংশ গ্রহণ এবং লেখনির মাধ্যমে সমাজ উন্নয়নে আমৃত্যু ভুমিকা পালন করায় সংবর্ধিত হয়েছেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালিক ফারুক(মরণোত্তর),মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে  একজন দক্ষ সংগঠক হিসেবে কাজ করা, রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক ও সংস্কারক হিসেবে আমৃত্যু কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,ফয়জুর রহমান ফৈয়াজ (মরণোত্তর)’ সমাজ সেবক হিসেবে এলাকার মানুষের ভাগ্যন্নোয়নে আমৃত্যু কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন হারুনুর রশিদ চেয়ারম্যান (মরণোত্তর)।বিয়ানীবাজার

সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে আমৃত্যু সমাজ উন্নয়নে কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন আব্দুর রউফ খান মিষ্টু (মরণোত্তর),বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত শিল্পী হিসেবে পল্লীগীতি গানের মাধ্যমে সমাজ সংস্কারে অনবদ্য ভূমিকা পালন করায় সংবর্ধিত হয়েছেন আব্দুন নুর,একজন সফল সংগীত সাধক হিসেবে সমাজের অসংগতি ফুটিয়ে তুলতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন বাউল হেলাল উদ্দিন সরকার,মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্ধুদ্ধ করতে আমৃত্যু গান গেয়ে নিজের জীবন উৎসর্গ করার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন শহীদ কমর উদ্দিন(মরণোত্তর),সাহিত্য রচনা ও গবেষণাকর্মে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন হাবিব আহমদ দত্তচৌধুরী,কবিতা লেখনির মাধ্যমে বিশ্বময় বাঙ্গালী জাতির হৃদয়কে জাগ্রত করতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন,ওয়ালি মাহমুদ।

রাজনীতি, সমাজ সেবা এবং গান লেখনীর মাধ্যমে সমাজ সংস্কারে আমৃত্যু অগ্রণী ভুমিকা রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন, শেখ ওয়াহিদুর রহমান (মরণোত্তর),জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে এলাকায় সম্মানবৃদ্ধিসহ মানব সেবায় কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন এম. হাসানুল হক উজ্জ্বল,বিদেশ বিভূঁইয়ে বসবাস করে দেশ তথা এলাকার মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন কাজ করার স্বীকৃতি স্বরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন মুহিবুর রহমান মুহিব।

সফল সংগীত সাধক হিসেবে সমাজের অসংগতি ফুটিয়ে তুলতে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতি সরূপ সংবর্ধিত হয়েছেন বেলাল উদ্দিন,বাংলা সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সংবর্ধিত হয়েছেন আজিজ ইবনে গণি, সাহিত্য রচনা ও গবেষনা কর্মে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ সংবর্ধিত হয়েছেন ফজলুল হক(মরণোত্তর),ও গৌছ উদ্দিন খান প্রমুখ।10501 -

পল্লীবাউল লোক সংগীতালয়ে প্রতিষ্ঠাতা ও সংগীত প্রশিক্ষক শিল্পী এস এম মানিক বলেন,যোগ্য ব্যক্তিকে যোগ্য সম্মান করতে না পারলে সমাজে গুণীজন সৃষ্টি হয় না। বিয়ানীবাজারের প্রত্যেকেই সমাজ উন্নয়নের কারিগর তাদের সংবর্ধিত করার পাশাপাশি গুণীজনদের সংবর্ধনার মাধ্যমে যে অনুপ্রেরণা দিয়েছে, তাতে তাদের মধ্যে আগামীতে দেশ ও দেশমাতৃকার কল্যাণে কাজ করার আগ্রহ সৃষ্টি হবে।

শেষে মনজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন,বাংলাদেশ বেতারের নিয়মিত শিল্পী বাউল হেলাল উদ্দিন সরকার,গীতিকার ও শিল্পী আয়াজ বাঙ্গালী, শিপা দেওয়ান, ইকবাল হোসেন প্রমুখ।