০৪:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশে তৃতীয় আইসিটি একাডেমি স্থাপন করবে হুয়াওয়ে

print news -

 শিক্ষার্থীদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিষয়ক জ্ঞান ও দক্ষতা বিকাশের জন্য আইসিটি একাডেমি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সম্প্রতি রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আইসিটি অবকাঠামো সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড।

গতকাল (১৩ সেপ্টেম্বর) রুয়েট ক্যাম্পাসের ভিসি কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়। রুয়েটে প্রতিষ্ঠিত হতে যাওয়া এই আইসিটি একাডেমিটি শিক্ষার্থীদের আইসিটি জ্ঞান ও ভবিষ্যতের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জনের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ২০২২ সালের এপ্রিল মাসে বুয়েটে প্রথম আইসিটি একাডেমি চালু করে হুয়াওয়ে, পরবর্তীতে গত আগষ্ট মাসে কুয়েটে আইসিটি একাডেমি স্থাপনের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে হুয়াওয়ে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন। এছাড়াও, অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে (বাংলাদেশ) পাবলিক অ্যাফেয়ার্স এবং কমিউনিকেশন বিভাগের কান্ট্রি ডিরেক্টর কার্ল ইউয়িং সহ প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

হুয়াওয়ে এর নিজস্ব লার্নিং প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে রুয়েটের শিক্ষার্থীদের অনলাইন প্ল্যাটফর্ম এবং কোর্স প্রদান করবে। পাশাপাশি, রুয়েটের শিক্ষকগন এই একাডেমিতে হুয়াওয়ের সনদপ্রাপ্ত প্রশিক্ষক হওয়ার সুযোগ পাবেন। এই শিক্ষকগন আইসিটি একাডেমিতে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেবেন, যেখানে শিক্ষার্থীরা সর্বশেষ আইসিটি ট্রেন্ড সম্পর্কে বিস্তৃত ধারণা লাভ করতে পারবেন।

এ নিয়ে রুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, “বাংলাদেশ যদি আইসিটি খাত দ্বারা পরিচালিত প্রবৃদ্ধির ধারাকে সচল রাখতে চায় তাহলে আমাদের এ তরুণ জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। এ বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে আমরা হুয়াওয়ের সহযোগিতায় একটি আইসিটি একাডেমি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমাদের দেশের তরুণদের ভবিষ্যত উপযোগী করে গড়ে তুলতে সহায়তা করার জন্য আমি হুয়াওয়েকে ধন্যবাদ জানাই।”

এ প্রসঙ্গে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ এর কার্ল ইউয়িং বলেন, “হুয়াওয়ে আইসিটি একাডেমি এমন একটি উদ্যোগ, যা অ্যাকাডেমিশিয়ান ও এ খাতের বিশেষজ্ঞদের সাথে তরুণ শিক্ষার্থীদের মেলবন্ধনের দ্বারা তাদের মেধার উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে তরুণদের দক্ষতা বিকাশকে ত্বরাণ্বিত করতে কাজ করছে। এর আগে আমরা বুয়েট ও কুয়েটে আইসিটি একাডেমি চালু করেছি, যার চমৎকার ফলাফল পাওয়া গেছে। এবার রুয়েটে আইসিটি একাডেমি চালু করতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত।”

উল্লেখ্য যে, হুয়াওয়ে ২০১৩ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া কো-অপারেশন প্রকল্প হিসেবে আইসিটি একাডেমি চালু করে। বর্তমানে যুক্তরাজ্য, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন সহ বিশ্বজুড়ে ৯০টির বেশি দেশে হুয়াওয়ের পরিচালনায় ১৫০০ আইসিটি একাডেমির কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এ উদ্যোগের সঙ্গে সব মিলিয়ে ৯২৭টি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী সম্পৃক্ত। এছাড়াও, বিশ্বের হাজার হাজার শিক্ষার্থী এই উদ্যোগ থেকে উপকৃত হচ্ছেন।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

বাংলাদেশে তৃতীয় আইসিটি একাডেমি স্থাপন করবে হুয়াওয়ে

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৭:২৫:৫০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
print news -

 শিক্ষার্থীদের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিষয়ক জ্ঞান ও দক্ষতা বিকাশের জন্য আইসিটি একাডেমি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সম্প্রতি রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আইসিটি অবকাঠামো সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড।

গতকাল (১৩ সেপ্টেম্বর) রুয়েট ক্যাম্পাসের ভিসি কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়। রুয়েটে প্রতিষ্ঠিত হতে যাওয়া এই আইসিটি একাডেমিটি শিক্ষার্থীদের আইসিটি জ্ঞান ও ভবিষ্যতের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জনের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ২০২২ সালের এপ্রিল মাসে বুয়েটে প্রথম আইসিটি একাডেমি চালু করে হুয়াওয়ে, পরবর্তীতে গত আগষ্ট মাসে কুয়েটে আইসিটি একাডেমি স্থাপনের জন্য একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করে হুয়াওয়ে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন। এছাড়াও, অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে (বাংলাদেশ) পাবলিক অ্যাফেয়ার্স এবং কমিউনিকেশন বিভাগের কান্ট্রি ডিরেক্টর কার্ল ইউয়িং সহ প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

হুয়াওয়ে এর নিজস্ব লার্নিং প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে রুয়েটের শিক্ষার্থীদের অনলাইন প্ল্যাটফর্ম এবং কোর্স প্রদান করবে। পাশাপাশি, রুয়েটের শিক্ষকগন এই একাডেমিতে হুয়াওয়ের সনদপ্রাপ্ত প্রশিক্ষক হওয়ার সুযোগ পাবেন। এই শিক্ষকগন আইসিটি একাডেমিতে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেবেন, যেখানে শিক্ষার্থীরা সর্বশেষ আইসিটি ট্রেন্ড সম্পর্কে বিস্তৃত ধারণা লাভ করতে পারবেন।

এ নিয়ে রুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, “বাংলাদেশ যদি আইসিটি খাত দ্বারা পরিচালিত প্রবৃদ্ধির ধারাকে সচল রাখতে চায় তাহলে আমাদের এ তরুণ জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। এ বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে আমরা হুয়াওয়ের সহযোগিতায় একটি আইসিটি একাডেমি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমাদের দেশের তরুণদের ভবিষ্যত উপযোগী করে গড়ে তুলতে সহায়তা করার জন্য আমি হুয়াওয়েকে ধন্যবাদ জানাই।”

এ প্রসঙ্গে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ এর কার্ল ইউয়িং বলেন, “হুয়াওয়ে আইসিটি একাডেমি এমন একটি উদ্যোগ, যা অ্যাকাডেমিশিয়ান ও এ খাতের বিশেষজ্ঞদের সাথে তরুণ শিক্ষার্থীদের মেলবন্ধনের দ্বারা তাদের মেধার উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে তরুণদের দক্ষতা বিকাশকে ত্বরাণ্বিত করতে কাজ করছে। এর আগে আমরা বুয়েট ও কুয়েটে আইসিটি একাডেমি চালু করেছি, যার চমৎকার ফলাফল পাওয়া গেছে। এবার রুয়েটে আইসিটি একাডেমি চালু করতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত।”

উল্লেখ্য যে, হুয়াওয়ে ২০১৩ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী ইন্ডাস্ট্রি-একাডেমিয়া কো-অপারেশন প্রকল্প হিসেবে আইসিটি একাডেমি চালু করে। বর্তমানে যুক্তরাজ্য, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন সহ বিশ্বজুড়ে ৯০টির বেশি দেশে হুয়াওয়ের পরিচালনায় ১৫০০ আইসিটি একাডেমির কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এ উদ্যোগের সঙ্গে সব মিলিয়ে ৯২৭টি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী সম্পৃক্ত। এছাড়াও, বিশ্বের হাজার হাজার শিক্ষার্থী এই উদ্যোগ থেকে উপকৃত হচ্ছেন।