০২:০১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রেমিকা র গলা কেটে ৬ দিন বাথরুমে রাখে প্রেমিক

print news -

 

নিউজ ডেস্ক: গাজীপুর সদর উপজেলায় বঁটি দিয়ে প্রেমিকার গলা কেটে হত্যার পর ৬ দিন নিজের বাথরুমের ভেতর লাশ কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে প্রেমিক মিরাজ রহমান (১৯)। একাধিক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক থাকার সন্দেহের জেরেই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশের ধারণা।

গত ২৪ ডিসেম্বর ঝর্ণাকে হত্যা করার ৬ দিন পর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন প্রেমিক। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শনিবার বিকালে সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের মনিপুরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মারিয়া আক্তার ঝর্ণা (১৯) গাজীপুর সদর উপজেলার বিকেবাড়ী তালতলী এলাকার মুকুল হোসেনের মেয়ে। আটককৃত প্রেমিক মিরাজ মির্জাপুর ইউনিয়নের মনিপুরবাজার এলাকার স্থানীয় মজিবুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মারিয়া আক্তার ঝর্ণার সঙ্গে মিরাজের দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বর্তমান প্রেমিককে বিয়ে করার কথাও দিয়েছিল ঝর্ণা। পরে প্রেমিক জানতে পারে ঝর্ণার একাধিক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে। এ ছাড়া মেয়েটির খারাপ ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। প্রেমিকের এমন ধারণা থেকে একপর্যায়ে তাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে এমন ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জয়দেবপুর থানার ওসি সৈয়দ মিজানুর ইসলাম বলেন, মারিয়া আক্তার ঝর্ণাকে ধারালো বঁটি দিয়ে গলা কেটে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে। এ ঘটনায় প্রেমিক মিরাজকে আটক করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

প্রেমিকা র গলা কেটে ৬ দিন বাথরুমে রাখে প্রেমিক

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৩:২৪:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩
print news -

 

নিউজ ডেস্ক: গাজীপুর সদর উপজেলায় বঁটি দিয়ে প্রেমিকার গলা কেটে হত্যার পর ৬ দিন নিজের বাথরুমের ভেতর লাশ কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে প্রেমিক মিরাজ রহমান (১৯)। একাধিক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক থাকার সন্দেহের জেরেই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশের ধারণা।

গত ২৪ ডিসেম্বর ঝর্ণাকে হত্যা করার ৬ দিন পর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন প্রেমিক। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শনিবার বিকালে সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের মনিপুরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মারিয়া আক্তার ঝর্ণা (১৯) গাজীপুর সদর উপজেলার বিকেবাড়ী তালতলী এলাকার মুকুল হোসেনের মেয়ে। আটককৃত প্রেমিক মিরাজ মির্জাপুর ইউনিয়নের মনিপুরবাজার এলাকার স্থানীয় মজিবুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মারিয়া আক্তার ঝর্ণার সঙ্গে মিরাজের দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বর্তমান প্রেমিককে বিয়ে করার কথাও দিয়েছিল ঝর্ণা। পরে প্রেমিক জানতে পারে ঝর্ণার একাধিক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে। এ ছাড়া মেয়েটির খারাপ ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। প্রেমিকের এমন ধারণা থেকে একপর্যায়ে তাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে এমন ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জয়দেবপুর থানার ওসি সৈয়দ মিজানুর ইসলাম বলেন, মারিয়া আক্তার ঝর্ণাকে ধারালো বঁটি দিয়ে গলা কেটে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে। এ ঘটনায় প্রেমিক মিরাজকে আটক করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।