০৩:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক দায়িত্ব গ্রহনের পর ৪ ঘণ্টায় ৮ মন্ত্রীর পদত্যাগ

print news -

ব্রিটিশ মন্ত্রিসভা ঢেলে সাজাতে চলেছেন নতুন প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) তিনি সরকারপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার আধা ঘণ্টা যেতে না যেতেই পদত্যাগ করেন মন্ত্রিসভার দুই সদস্য। এরপর সময় গড়াতেই তালিকায় যোগ হয়েছেন আরও ছয় মন্ত্রী ও দুই নেতা।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে (বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৪টা) যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন ঋষি সুনাক। এর পরপরই পদত্যাগের ঘোষণা দেন দেশটির ব্যবসামন্ত্রী জ্যাকব রিস-মগ এবং বিচারমন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস।

এরপর একে একে সরে দাঁড়ান ব্রিটিশ পার্লামেন্টের চিফ হুইপ ওয়েন্ডি মর্টন, শিক্ষামন্ত্রী কিট ম্যালথাস, লেভেলিং আপ মন্ত্রী সাইমন ক্লার্ক, পরিবেশমন্ত্রী রনিল জয়াবর্ধনে। পদত্যাগ করেছেন দুই প্রতিমন্ত্রী। এমনকি কনজারভেটিভ পার্টি চেয়ারম্যান জেক বেরিও নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

রিস-মগ সম্প্রতি বলেছিলেন, তিনি ঋষির মন্ত্রিসভায় থাকবেন বলে আশা করছেন না। তবে প্রধানমন্ত্রী তাকে যে দায়িত্বই দেবেন, তা পালন করতে প্রস্তুত। তবে আগের অবস্থান থেকে সরে আসার বিষয়ে মঙ্গলবার পদত্যাগকারী এ মন্ত্রী বলেছেন, তিনি আর বিশ্বাস করেন না যে, ঋষি সুনাক ‘সমাজতন্ত্রবাদী’। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফকে তিনি বলেন, কনজারভেটিভ পার্টির নেতা স্পষ্টতই সমাজতান্ত্রিক নন।

বিচারমন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস এক টুইটে জানিয়েছেন, তার পদত্যাগপত্র নতুন প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। লুইস বলেছেন, যুক্তরাজ্যের দীর্ঘস্থায়ী কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের একজন হতে পারা তার কাছে অত্যন্ত সম্মানের বিষয়। তিনি চারজন প্রধানমন্ত্রীর অধীনে, পাঁচটি মন্ত্রণালয়ে আটটি মন্ত্রীর ভূমিকা পালন করেছেন। লুইস বলেছেন, দল ও দেশের জন্য ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নতুন প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তার সমর্থন থাকবে।

পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন লিজ ট্রাসের মন্ত্রিসভার শিক্ষামন্ত্রী কিট ম্যালথাস। সূত্রের বরাতে বিবিসি জানিয়েছে, ম্যালথাসকে পদাবনতির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। ম্যালথাসের পদত্যাগের ফলে চলতি বছরে পঞ্চম শিক্ষামন্ত্রীর দেখা পেতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্য।

পদত্যাগ করেছেন ওয়েলস বিষয়ক মন্ত্রী রবার্ট বাকল্যান্ডও। তবে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাককে সমর্থন অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। গত জুলাইয়ে বরিস জনসন সরকারের মন্ত্রী হয়েছিলেন বাকল্যান্ড। পরিবেশমন্ত্রী রনিল জয়াবর্ধনে পদত্যাগ করেছেন। লিজ ট্রাস প্রধানমন্ত্রী হয়ে তাকে ওই পদে বসিয়েছিলেন। মন্ত্রিসভা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন লেভেলিং আপ মন্ত্রী সাইমন ক্লার্কও।

পদত্যাগ করেছেন কর্ম ও পেনশন প্রতিমন্ত্রী ক্লোয়ি স্মিথ। বিদায়ীদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী ভিকি ফোর্ডও। এদিন হাউজ অব কমনসের চিফ হুইপ পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন ওয়েন্ডি মর্টন। এক টুইটে তিনি বলেছেন, পেছনের বেঞ্চগুলোতে যাচ্ছি। সেখান থেকে আমি ব্যবসা ও অ্যালড্রিজ-ব্রাউনহিলসের সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব অব্যাহত রাখবো।

পদত্যাগকারীদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান জেক বেরি। তিনি বলেছেন, এই দায়িত্ব পালন করা সম্মানজনক। কিন্তু সব জিনিসেরই একসময় অবসান হওয়া উচিত। সবশেষ অলোক শর্মা জানিয়েছেন, তিনি কপ২৬-এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করলেও মন্ত্রিত্বের ভূমিকায় আর থাকবেন না।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক দায়িত্ব গ্রহনের পর ৪ ঘণ্টায় ৮ মন্ত্রীর পদত্যাগ

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৩:০৩:১০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৬ অক্টোবর ২০২২
print news -

ব্রিটিশ মন্ত্রিসভা ঢেলে সাজাতে চলেছেন নতুন প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) তিনি সরকারপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার আধা ঘণ্টা যেতে না যেতেই পদত্যাগ করেন মন্ত্রিসভার দুই সদস্য। এরপর সময় গড়াতেই তালিকায় যোগ হয়েছেন আরও ছয় মন্ত্রী ও দুই নেতা।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে (বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৪টা) যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন ঋষি সুনাক। এর পরপরই পদত্যাগের ঘোষণা দেন দেশটির ব্যবসামন্ত্রী জ্যাকব রিস-মগ এবং বিচারমন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস।

এরপর একে একে সরে দাঁড়ান ব্রিটিশ পার্লামেন্টের চিফ হুইপ ওয়েন্ডি মর্টন, শিক্ষামন্ত্রী কিট ম্যালথাস, লেভেলিং আপ মন্ত্রী সাইমন ক্লার্ক, পরিবেশমন্ত্রী রনিল জয়াবর্ধনে। পদত্যাগ করেছেন দুই প্রতিমন্ত্রী। এমনকি কনজারভেটিভ পার্টি চেয়ারম্যান জেক বেরিও নিজের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন।

রিস-মগ সম্প্রতি বলেছিলেন, তিনি ঋষির মন্ত্রিসভায় থাকবেন বলে আশা করছেন না। তবে প্রধানমন্ত্রী তাকে যে দায়িত্বই দেবেন, তা পালন করতে প্রস্তুত। তবে আগের অবস্থান থেকে সরে আসার বিষয়ে মঙ্গলবার পদত্যাগকারী এ মন্ত্রী বলেছেন, তিনি আর বিশ্বাস করেন না যে, ঋষি সুনাক ‘সমাজতন্ত্রবাদী’। ব্রিটিশ দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফকে তিনি বলেন, কনজারভেটিভ পার্টির নেতা স্পষ্টতই সমাজতান্ত্রিক নন।

বিচারমন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস এক টুইটে জানিয়েছেন, তার পদত্যাগপত্র নতুন প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। লুইস বলেছেন, যুক্তরাজ্যের দীর্ঘস্থায়ী কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের একজন হতে পারা তার কাছে অত্যন্ত সম্মানের বিষয়। তিনি চারজন প্রধানমন্ত্রীর অধীনে, পাঁচটি মন্ত্রণালয়ে আটটি মন্ত্রীর ভূমিকা পালন করেছেন। লুইস বলেছেন, দল ও দেশের জন্য ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নতুন প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তার সমর্থন থাকবে।

পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন লিজ ট্রাসের মন্ত্রিসভার শিক্ষামন্ত্রী কিট ম্যালথাস। সূত্রের বরাতে বিবিসি জানিয়েছে, ম্যালথাসকে পদাবনতির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। ম্যালথাসের পদত্যাগের ফলে চলতি বছরে পঞ্চম শিক্ষামন্ত্রীর দেখা পেতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্য।

পদত্যাগ করেছেন ওয়েলস বিষয়ক মন্ত্রী রবার্ট বাকল্যান্ডও। তবে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাককে সমর্থন অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। গত জুলাইয়ে বরিস জনসন সরকারের মন্ত্রী হয়েছিলেন বাকল্যান্ড। পরিবেশমন্ত্রী রনিল জয়াবর্ধনে পদত্যাগ করেছেন। লিজ ট্রাস প্রধানমন্ত্রী হয়ে তাকে ওই পদে বসিয়েছিলেন। মন্ত্রিসভা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন লেভেলিং আপ মন্ত্রী সাইমন ক্লার্কও।

পদত্যাগ করেছেন কর্ম ও পেনশন প্রতিমন্ত্রী ক্লোয়ি স্মিথ। বিদায়ীদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী ভিকি ফোর্ডও। এদিন হাউজ অব কমনসের চিফ হুইপ পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন ওয়েন্ডি মর্টন। এক টুইটে তিনি বলেছেন, পেছনের বেঞ্চগুলোতে যাচ্ছি। সেখান থেকে আমি ব্যবসা ও অ্যালড্রিজ-ব্রাউনহিলসের সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিত্ব অব্যাহত রাখবো।

পদত্যাগকারীদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান জেক বেরি। তিনি বলেছেন, এই দায়িত্ব পালন করা সম্মানজনক। কিন্তু সব জিনিসেরই একসময় অবসান হওয়া উচিত। সবশেষ অলোক শর্মা জানিয়েছেন, তিনি কপ২৬-এর সভাপতির দায়িত্ব পালন করলেও মন্ত্রিত্বের ভূমিকায় আর থাকবেন না।