০৭:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশে বাড়ছে ৫৩টি ওষুধের দাম

print news -

বিশ্ব বাজারে বেড়েছে ওষুধ তৈরির কাঁচামালের দাম। তাই ওষুধের দাম সমন্বয় করায় বাড়তে যাচ্ছে ১৯টি জেনেরিকের মোট ৫৩টি ওষুধের দাম।

দাম বাড়ার তালিকায় আছে প্যারাসিটামল, মেট্রোনিডাজল, অ্যামোক্সিসিলিন, খাবার স্যালাইন। বিশ্ববাজারে কাঁচামালের দাম বাড়ার কারণেই এসব ওষুধের দাম বাড়তে যাচ্ছে বলে জানালো ওষুধ প্রশাসনসহ এই খাতের ব্যবসায়ীরা। সর্দি কাশি জ্বরের মতো সাধারণ রোগ বালাইয়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ওষুধ নাম প্যারাসিটামল। এন্টিবায়েটিক অ্যামোক্সিসিলিন কিনতেও গুণতে হবে বাড়তি টাকা। কারণ বিশ্ববাজারে এসব ওষুধ তৈরির কাঁচামালের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আইয়ুব হোসেন জানান, ১৯টি জেনেরিকের ওষুধের দাম সমন্বয় করার কারণে বাড়তে যাচ্ছে ৫৩ রকমের ওষুধের দাম। যেখানে ৮০ পয়সার প্যারাসিটামল ট্যাবলেটের দাম হবে ভ্যাটসহ ১ টাকা ২০ পয়সা। ১৮ টাকার প্যারাসিটামল সিরাপ হবে ৩৫ টাকা। ২০০ এমজির মেট্রোনিডাজল ট্যাবলেটের দাম ৪০ পয়সা বেড়ে হবে ১ টাকা। ১ টাকার আড়াই’শ এমজির মেট্রোনিডাজল ট্যাবলেট হবে ১.২৫ পয়সা।

১২ টাকা বেড়ে মেট্রোনিডাজল সিরাপের সবোর্চ্চ খুচরা দাম হবে ৩৫ টাকা। আর ১০০ এমএল সিরাপের দাম ৫ টাকা বেড়ে হবে ৪৫ টাকা। অ্যান্টিবায়েটিক অ্যামোক্সিসিলিন সিরাপের দাম ৪ টাকা বেড়ে হবে ৩৫ টাকা। ২৫০ এমজির প্রতিটি ক্যাপসুলের দাম ৪০ পয়সা বেড়ে হবে ৪ টাকা। ১ টাকা বেড়ে ৬ টাকায় কিনতে হবে খাবার স্যালাইন প্রতি প্যাকেট। অ্যাসপিরিন প্রতিটির দাম ৩০ পয়সা বেড়ে হবে ৮০ পয়সা। দাম বৃদ্ধির তালিকায় আছে, নাকের ড্রপ, ফলিক এসিডসহ অন্যান্য গ্রুপের আরও কিছু ওষুধের দাম। ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদনের পর শিগগির কার্যকর হবে এসব ওষুধের দাম।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

দেশে বাড়ছে ৫৩টি ওষুধের দাম

প্রকাশিত হয়েছেঃ ১০:২৫:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ জুলাই ২০২২
print news -

বিশ্ব বাজারে বেড়েছে ওষুধ তৈরির কাঁচামালের দাম। তাই ওষুধের দাম সমন্বয় করায় বাড়তে যাচ্ছে ১৯টি জেনেরিকের মোট ৫৩টি ওষুধের দাম।

দাম বাড়ার তালিকায় আছে প্যারাসিটামল, মেট্রোনিডাজল, অ্যামোক্সিসিলিন, খাবার স্যালাইন। বিশ্ববাজারে কাঁচামালের দাম বাড়ার কারণেই এসব ওষুধের দাম বাড়তে যাচ্ছে বলে জানালো ওষুধ প্রশাসনসহ এই খাতের ব্যবসায়ীরা। সর্দি কাশি জ্বরের মতো সাধারণ রোগ বালাইয়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ওষুধ নাম প্যারাসিটামল। এন্টিবায়েটিক অ্যামোক্সিসিলিন কিনতেও গুণতে হবে বাড়তি টাকা। কারণ বিশ্ববাজারে এসব ওষুধ তৈরির কাঁচামালের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আইয়ুব হোসেন জানান, ১৯টি জেনেরিকের ওষুধের দাম সমন্বয় করার কারণে বাড়তে যাচ্ছে ৫৩ রকমের ওষুধের দাম। যেখানে ৮০ পয়সার প্যারাসিটামল ট্যাবলেটের দাম হবে ভ্যাটসহ ১ টাকা ২০ পয়সা। ১৮ টাকার প্যারাসিটামল সিরাপ হবে ৩৫ টাকা। ২০০ এমজির মেট্রোনিডাজল ট্যাবলেটের দাম ৪০ পয়সা বেড়ে হবে ১ টাকা। ১ টাকার আড়াই’শ এমজির মেট্রোনিডাজল ট্যাবলেট হবে ১.২৫ পয়সা।

১২ টাকা বেড়ে মেট্রোনিডাজল সিরাপের সবোর্চ্চ খুচরা দাম হবে ৩৫ টাকা। আর ১০০ এমএল সিরাপের দাম ৫ টাকা বেড়ে হবে ৪৫ টাকা। অ্যান্টিবায়েটিক অ্যামোক্সিসিলিন সিরাপের দাম ৪ টাকা বেড়ে হবে ৩৫ টাকা। ২৫০ এমজির প্রতিটি ক্যাপসুলের দাম ৪০ পয়সা বেড়ে হবে ৪ টাকা। ১ টাকা বেড়ে ৬ টাকায় কিনতে হবে খাবার স্যালাইন প্রতি প্যাকেট। অ্যাসপিরিন প্রতিটির দাম ৩০ পয়সা বেড়ে হবে ৮০ পয়সা। দাম বৃদ্ধির তালিকায় আছে, নাকের ড্রপ, ফলিক এসিডসহ অন্যান্য গ্রুপের আরও কিছু ওষুধের দাম। ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদনের পর শিগগির কার্যকর হবে এসব ওষুধের দাম।