০৬:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ড. মুহাম্মদ ইউনূ সঃ শ্রম আদালতে কারাদণ্ডে র রায়ের বিরুদ্ধে আপি ল

print news -

শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলায় ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ৪ জনের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত, তাদের জামিন দিয়েছে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল।

আরো পড়ুন:উত্তরাঞ্চলে তী ব্র শৈত্য প্রবাহ, বাড়বে দিনের তাপ মাত্রা

ঢাকার কাকরাইলে অবস্থিত বাংলাদেশের একমাত্র শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের বিচারক এম এ আউয়াল এ আদেশ দেন বলে জানান দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

তিনি জানান যে রায় বাতিল করে, অভিযোগ থেকে দণ্ডপ্রাপ্তদের খালাস দাবি করে আবেদন করা হয়েছে।ড. ইউনূস ছাড়া সাজাপ্রাপ্ত অপর ৩ জন হলেন, গ্রামীণ টেলিকমের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুর জাহান বেগম ও মো. শাহজাহান।

আপিল আবেদন

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, “ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের দেয়া রায় চ্যালেঞ্জ করে ড. ইউনূসসহ ৪ জন বিবাদী রবিবার শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে আপিল করেন এবং স্থায়ী জামিন প্রার্থণা করেন।”

এর আগে, ১ জানুয়ারি ড. ইউনূসসহ ৪ জনকে ৬ মাস করে কারাদণ্ডের রায় দেয় আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

রায় ঘোষণার পর উচ্চ আদালতে আপিল করার শর্তে ড. ইউনূসসহ ৪ জনকে এক মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছিলো একই আদালত।একই সঙ্গে, আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাদেরকে জামিন দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

মামলায় কী ছিল?

গত ২০২১ সালের ১ সেপ্টেম্বর শ্রম ট্রাইব্যুনালে ড. ইউনূসসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়। গত বছর ৬ জুন মামলার অভিযোগ গঠিত হয়। ২২ আগস্ট সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়, শেষ হয় ৯ নভেম্বর। আর, যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ হয় ২৪ ডিসেম্বর।

মামলায় অভিযোগ আনা হয়, শ্রম আইন ২০০৬ ও শ্রম বিধিমালা ২০১৫ অনুযায়ী, গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক বা কর্মচারীদের শিক্ষানবিশকাল পার হলেও তাদের নিয়োগ স্থায়ী করা হয়নি। প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক বা কর্মচারীদের মজুরিসহ বার্ষিক ছুটি, ছুটি নগদায়ন ও ছুটির বিপরীতে নগদ অর্থ দেয়া হয়নি।

গ্রামীণ টেলিকমে শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল ও কল্যাণ তহবিল গঠন করা হয়নি এবং লভ্যাংশের ৫ শতাংশের সমপরিমাণ অর্থ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন আইন অনুযায়ী গঠিত তহবিলে জমা দেয়া হয়নি।

ট্যাগঃ

ড. মুহাম্মদ ইউনূ সঃ শ্রম আদালতে কারাদণ্ডে র রায়ের বিরুদ্ধে আপি ল

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৬:১২:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৪
print news -

শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলায় ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ৪ জনের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত, তাদের জামিন দিয়েছে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনাল।

আরো পড়ুন:উত্তরাঞ্চলে তী ব্র শৈত্য প্রবাহ, বাড়বে দিনের তাপ মাত্রা

ঢাকার কাকরাইলে অবস্থিত বাংলাদেশের একমাত্র শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের বিচারক এম এ আউয়াল এ আদেশ দেন বলে জানান দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল মামুন।

তিনি জানান যে রায় বাতিল করে, অভিযোগ থেকে দণ্ডপ্রাপ্তদের খালাস দাবি করে আবেদন করা হয়েছে।ড. ইউনূস ছাড়া সাজাপ্রাপ্ত অপর ৩ জন হলেন, গ্রামীণ টেলিকমের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুর জাহান বেগম ও মো. শাহজাহান।

আপিল আবেদন

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, “ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের দেয়া রায় চ্যালেঞ্জ করে ড. ইউনূসসহ ৪ জন বিবাদী রবিবার শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে আপিল করেন এবং স্থায়ী জামিন প্রার্থণা করেন।”

এর আগে, ১ জানুয়ারি ড. ইউনূসসহ ৪ জনকে ৬ মাস করে কারাদণ্ডের রায় দেয় আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

রায় ঘোষণার পর উচ্চ আদালতে আপিল করার শর্তে ড. ইউনূসসহ ৪ জনকে এক মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছিলো একই আদালত।একই সঙ্গে, আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাদেরকে জামিন দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

মামলায় কী ছিল?

গত ২০২১ সালের ১ সেপ্টেম্বর শ্রম ট্রাইব্যুনালে ড. ইউনূসসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়। গত বছর ৬ জুন মামলার অভিযোগ গঠিত হয়। ২২ আগস্ট সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়, শেষ হয় ৯ নভেম্বর। আর, যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ হয় ২৪ ডিসেম্বর।

মামলায় অভিযোগ আনা হয়, শ্রম আইন ২০০৬ ও শ্রম বিধিমালা ২০১৫ অনুযায়ী, গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক বা কর্মচারীদের শিক্ষানবিশকাল পার হলেও তাদের নিয়োগ স্থায়ী করা হয়নি। প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক বা কর্মচারীদের মজুরিসহ বার্ষিক ছুটি, ছুটি নগদায়ন ও ছুটির বিপরীতে নগদ অর্থ দেয়া হয়নি।

গ্রামীণ টেলিকমে শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল ও কল্যাণ তহবিল গঠন করা হয়নি এবং লভ্যাংশের ৫ শতাংশের সমপরিমাণ অর্থ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন আইন অনুযায়ী গঠিত তহবিলে জমা দেয়া হয়নি।