০৯:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ট্রাক চাপায় গর্ভবতী মায়ের প্রাণ গেলেও গর্ভের শিশুটি কেমন আছে ,সড়ক দুর্ঘটনায় ওই পরিবারে মারা গেছেন ৫ জন

print news -

নিউজ ডেস্ক। নির্মম বাস্তবতা ট্রাকচাপায় মা-বাবা ও বােনকে হারিয়ে অলৌকিকভাবে জন্ম নেওয়া শিশুটি বর্তমানে ময়মনসিংহ নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শিশুটি সুস্থ আছে। শােকের মাতম থামছে না নবজাতকের স্বজনদের। বিষয়টি নিয়ে দেশজুড়ে তােলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, অতীতেও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ওই পরিবারের ৫ জন সদস্য।
স্বজনরা জানান, শনিবার বিকেলে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার দিনমজুর জাহাঙ্গীর আলম তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে গিয়েছিলেন চিকিৎসকের কাছে। এ সময় তাদের সঙ্গে ছিল ৬ বছরের শিশুকন্যা সানজিদা। পরিকল্পনা মতাে ত্রিশালের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আন্ট্রাসনােগ্রাম করে তারা ঢাকাময়মনসিংহ মহাসড়ক ধরে ফিরছিলেন বাড়ির পথে। কিন্তু মহাসড়ক পার হওয়ার সময় বেপরােয়া একটি মালবাহী ট্রাক চাপা দিলে ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় মা-বাবার। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় বােনের। তবে দুর্ঘটনার সময় মায়ের পেটের উপর দিয়ে মালবাহী ট্রাকের চাকা চলে গেলেও অলৌকিকভাবে ভূমিষ্ট হয় ফুটফুটে এক নবজাতক। ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক নারী। শিশুটিকে কাপড়ে মুড়ে প্রাথমিক যত্ন দিতে সহায়তা করেন। তাকে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর বােঝা যায় নবজাতক আহত হয়েছে। বর্তমানে শিশুটি ময়মনসিংহের লাবীব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
জানিয়ে ওই হাসপাতালের পরিচালক মাে. শাহজাহান জানান, জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন ও ত্রিশালের একজন ব্যবসায়ী নিয়মিত শিশুটির খোঁজখবর রাখছেন। বর্তমানে শিশুটি সুস্থ আছে। হাসপাতালটির শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. কামরুজ্জামান জানান, নবজাতক শিশুটির হাতের কনুইয়ের উপরে যে মােটা হাড় থাকে সেখানে ফ্র্যাকচার হয়েছে তার কলার বােন ভেঙে গেছে ভাঙা জায়গায় ব্যান্ডেজ করা হয়েছে। তবে কোনাে ধরনের ইন্টারনাল ইনজুরি আমরা পাইনি। শিশুটির ওজন তিন কেজির চেয়ে সামান্য বেশি। সে মাশাল্লাহ সুস্থ আছে। কিন্তু যেভাবে সাংবাদিকসহ মানুষজন ভিড় করছে, তাতে নবজাতক তাে, কোনাে ইনফেকশন হয়ে যায় কিনা সেটা নিয়ে আমরা কিছুটা শঙ্কিত। তিনি জানান, এখন শিশুটির দেখভাল করছেন হাসপাতালটির মালিকের স্ত্রী ও সেখানে কর্মরত কয়েকজন নার্স। তাছাড়া হাসপাতালটিতে সন্তান জন্ম দেয়া কয়েকজন প্রসূতি শিশুটিকে ভাগ করে বুকের দুধ পান করাচ্ছেন। মৃত জাহাঙ্গীর আলমের চাচাতাে ভাই শরীফ উদ্দিন বলেন, বাবা-মায়ের মৃত্যুর কারণে এখনাে শিশুটির নাম রাখা হয়নি। আমরা ওই পর্যন্ত ভাবতেও পারিনি আমার ভাই নিজে এক সময় পেশায় গাড়ির চালক ছিল। ত্রিশাল এলাকায় নিয়মিত দুর্ঘটনা ঘটতে দেখে বাচ্চা-কাচ্চা হওয়ার পর সে গাড়ি চালানাের কাজ ছেড়ে দেয়। ওদের এইভাবে মৃত্যু আমরা ভাবতেও পারছি না। এখন শিশুটির দায়িত্ব কে নেবে তা নিয়ে গতকাল উচ্চ আদালতের একটি বেঞ্চেও বিষয়টি উত্থাপন করা হয়েছে।
এদিকে শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মােহাম্মদ এনামুল হক চিকিৎসাধীন ওই শিশুকে দেখতে গিয়ে শিশুটির চিকিৎসাসহ ভরণপােষণের দায়িত্ব নিয়েছেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, শিশুটির চিকিৎসা খরচসহ ভবিষ্যতের জন্য তার নামে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নিহতের স্বজনরা জানান, জাহাঙ্গীর ও রত্না বেগমের দশ বছর বয়সী মেয়ে জান্নাত ও সাত বছর বয়সী ছেলে এবাদত রয়েছে। মা-বাবা ও বােনকে হারিয়ে এখন তারা নির্বাক। শনিবার রাতে উপজেলার রায়মনি গ্রামে নিজ বসতঘরের পেছনে পাশাপাশি তিন কবরে দাফন করা হয় জাহাঙ্গীর আলম (৪০), স্ত্রী রত্না বেগম (৩২) ও তাদের ৬ বছরের মেয়ে সানজিদাকে। ওই পরিবারে বারবার মৃত্যুর হানা : জানা গেছে, অতীতেও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ওই পরিবারের কয়েকজন সদস্য। জাহাঙ্গীর আলমের বাবা মােস্তাফিজুর রহমান বলেন, এই সড়ক আমারে শেষ করে দিছে। আমার দুইটা ছেলেরে নিছে, আমার ছােট ভাইডারে নিছে, ছেলের বউ, নাতনিকে নিছে। আর না জানি কারে কারে নেয়। ছেলে, বউমা ও নাতনিকে হারিয়ে শােকার্ত জাহাঙ্গীরের মা সুফিয়ার কান্না থামছে না।
জানা গেছে, ২০০৪ সালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুর্ঘটনায় মারা যান তার ছােট ছেলে শামসুল হক। ১৯৯৫ সালে ওই সড়কেই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ছােট ভাই ফজলুল হকের। আর এবার আরও এক ছেলে, বউমা ও নাতনির প্রাণ কেড়ে নিল ওই সড়ক।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

ট্রাক চাপায় গর্ভবতী মায়ের প্রাণ গেলেও গর্ভের শিশুটি কেমন আছে ,সড়ক দুর্ঘটনায় ওই পরিবারে মারা গেছেন ৫ জন

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৮:৫৯:৩১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ জুলাই ২০২২
print news -

নিউজ ডেস্ক। নির্মম বাস্তবতা ট্রাকচাপায় মা-বাবা ও বােনকে হারিয়ে অলৌকিকভাবে জন্ম নেওয়া শিশুটি বর্তমানে ময়মনসিংহ নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শিশুটি সুস্থ আছে। শােকের মাতম থামছে না নবজাতকের স্বজনদের। বিষয়টি নিয়ে দেশজুড়ে তােলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, অতীতেও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ওই পরিবারের ৫ জন সদস্য।
স্বজনরা জানান, শনিবার বিকেলে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার দিনমজুর জাহাঙ্গীর আলম তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে গিয়েছিলেন চিকিৎসকের কাছে। এ সময় তাদের সঙ্গে ছিল ৬ বছরের শিশুকন্যা সানজিদা। পরিকল্পনা মতাে ত্রিশালের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আন্ট্রাসনােগ্রাম করে তারা ঢাকাময়মনসিংহ মহাসড়ক ধরে ফিরছিলেন বাড়ির পথে। কিন্তু মহাসড়ক পার হওয়ার সময় বেপরােয়া একটি মালবাহী ট্রাক চাপা দিলে ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় মা-বাবার। হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় বােনের। তবে দুর্ঘটনার সময় মায়ের পেটের উপর দিয়ে মালবাহী ট্রাকের চাকা চলে গেলেও অলৌকিকভাবে ভূমিষ্ট হয় ফুটফুটে এক নবজাতক। ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দুর্ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক নারী। শিশুটিকে কাপড়ে মুড়ে প্রাথমিক যত্ন দিতে সহায়তা করেন। তাকে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর বােঝা যায় নবজাতক আহত হয়েছে। বর্তমানে শিশুটি ময়মনসিংহের লাবীব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
জানিয়ে ওই হাসপাতালের পরিচালক মাে. শাহজাহান জানান, জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন ও ত্রিশালের একজন ব্যবসায়ী নিয়মিত শিশুটির খোঁজখবর রাখছেন। বর্তমানে শিশুটি সুস্থ আছে। হাসপাতালটির শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. কামরুজ্জামান জানান, নবজাতক শিশুটির হাতের কনুইয়ের উপরে যে মােটা হাড় থাকে সেখানে ফ্র্যাকচার হয়েছে তার কলার বােন ভেঙে গেছে ভাঙা জায়গায় ব্যান্ডেজ করা হয়েছে। তবে কোনাে ধরনের ইন্টারনাল ইনজুরি আমরা পাইনি। শিশুটির ওজন তিন কেজির চেয়ে সামান্য বেশি। সে মাশাল্লাহ সুস্থ আছে। কিন্তু যেভাবে সাংবাদিকসহ মানুষজন ভিড় করছে, তাতে নবজাতক তাে, কোনাে ইনফেকশন হয়ে যায় কিনা সেটা নিয়ে আমরা কিছুটা শঙ্কিত। তিনি জানান, এখন শিশুটির দেখভাল করছেন হাসপাতালটির মালিকের স্ত্রী ও সেখানে কর্মরত কয়েকজন নার্স। তাছাড়া হাসপাতালটিতে সন্তান জন্ম দেয়া কয়েকজন প্রসূতি শিশুটিকে ভাগ করে বুকের দুধ পান করাচ্ছেন। মৃত জাহাঙ্গীর আলমের চাচাতাে ভাই শরীফ উদ্দিন বলেন, বাবা-মায়ের মৃত্যুর কারণে এখনাে শিশুটির নাম রাখা হয়নি। আমরা ওই পর্যন্ত ভাবতেও পারিনি আমার ভাই নিজে এক সময় পেশায় গাড়ির চালক ছিল। ত্রিশাল এলাকায় নিয়মিত দুর্ঘটনা ঘটতে দেখে বাচ্চা-কাচ্চা হওয়ার পর সে গাড়ি চালানাের কাজ ছেড়ে দেয়। ওদের এইভাবে মৃত্যু আমরা ভাবতেও পারছি না। এখন শিশুটির দায়িত্ব কে নেবে তা নিয়ে গতকাল উচ্চ আদালতের একটি বেঞ্চেও বিষয়টি উত্থাপন করা হয়েছে।
এদিকে শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মােহাম্মদ এনামুল হক চিকিৎসাধীন ওই শিশুকে দেখতে গিয়ে শিশুটির চিকিৎসাসহ ভরণপােষণের দায়িত্ব নিয়েছেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, শিশুটির চিকিৎসা খরচসহ ভবিষ্যতের জন্য তার নামে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নিহতের স্বজনরা জানান, জাহাঙ্গীর ও রত্না বেগমের দশ বছর বয়সী মেয়ে জান্নাত ও সাত বছর বয়সী ছেলে এবাদত রয়েছে। মা-বাবা ও বােনকে হারিয়ে এখন তারা নির্বাক। শনিবার রাতে উপজেলার রায়মনি গ্রামে নিজ বসতঘরের পেছনে পাশাপাশি তিন কবরে দাফন করা হয় জাহাঙ্গীর আলম (৪০), স্ত্রী রত্না বেগম (৩২) ও তাদের ৬ বছরের মেয়ে সানজিদাকে। ওই পরিবারে বারবার মৃত্যুর হানা : জানা গেছে, অতীতেও সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ওই পরিবারের কয়েকজন সদস্য। জাহাঙ্গীর আলমের বাবা মােস্তাফিজুর রহমান বলেন, এই সড়ক আমারে শেষ করে দিছে। আমার দুইটা ছেলেরে নিছে, আমার ছােট ভাইডারে নিছে, ছেলের বউ, নাতনিকে নিছে। আর না জানি কারে কারে নেয়। ছেলে, বউমা ও নাতনিকে হারিয়ে শােকার্ত জাহাঙ্গীরের মা সুফিয়ার কান্না থামছে না।
জানা গেছে, ২০০৪ সালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুর্ঘটনায় মারা যান তার ছােট ছেলে শামসুল হক। ১৯৯৫ সালে ওই সড়কেই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ছােট ভাই ফজলুল হকের। আর এবার আরও এক ছেলে, বউমা ও নাতনির প্রাণ কেড়ে নিল ওই সড়ক।