০৩:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উগান্ডার ঐতিহাসিক জয়

print news -

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উগান্ডার ঐতিহাসিক জয়: বিশ্বকাপই পারে এমন দারুণ গল্পের জন্ম দিতে! অবশ্য গল্পটা উগান্ডার জন্যই বোধ হয় দারুণ। পাপুয়া নিউগিনির জন্য স্বপ্নভঙ্গের। লড়াই করতে করতে আরও একবার হেরেছে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ খেলতে আসা পাপুয়া নিউগিনি। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৫ উইকেটে হারের পর আজ উগান্ডার বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরেছে তারা।

গায়ানায় পাপুয়া নিউগিনির দেওয়া ৭৮ রানের লক্ষ্য উগান্ডা টপকে গেছে ১০ বল হাতে রেখে। দলটির স্বপ্নভঙ্গের গল্পে উগান্ডার আগ্রহ থাকার কথা নয়। কারণ, উগান্ডা যে প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে এসেই ঐতিহাসিক জয় তুলে নিয়েছে! সেটাও মাত্র দ্বিতীয় ম্যাচে। তাই দিনটা তাদের জন্য শুধুই উৎসবের।

টস জিতে ফিল্ডিং করা উগান্ডা মাত্র ৭৮ রানের লক্ষ্য পেয়েও সহজে জয় পায়নি। একটা পর্যায়ে তো এই ৭৮ রানই মনে হয়েছে দূরের পথ। মাত্র ২৬ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল উগান্ডা। সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন রিয়াজাত আলী শাহ।

৫৬ বলে ৩৩ রানের ইনিংস খেলেন এই ব্যাটসম্যান। ওয়ানডে মেজাজের এই ইনিংসই এখন উগান্ডার ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা ইনিংসের মর্যাদা পেতে পারে। তিনি অবশ্য ম্যাচটি জিতিয়ে আসতে পারেননি। জয় থেকে ৩ রানের দূরত্বে উইকেট দিয়ে আসেন রিয়াজাত। তাতে কী! ম্যাচসেরার পুরস্কারটা তাঁর হাতেই উঠেছে।

অবশ্য উগান্ডার ম্যাচ জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়েছিল তাদের বোলাররা। একজনের নাম আলাদা করে বলতে হবে। বিশ্বকাপ শুরুর আগে থেকেই অবশ্য তিনি আলোচনায়। অভিষেকের পর ২৭ বছর অপেক্ষা করে বিশ্বকাপ খেলা ৪৩ বছর বয়সী ফ্র্যাঙ্ক এনসুবুগা বিশ্বকাপে নিজের প্রথম ম্যাচেই গড়েছেন রেকর্ড।

আজ ৪ ওভারে ৪ রানে ২ উইকেট তুলে নিয়েছেন এই স্পিনার—টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে সবচেয়ে কিপটে স্পেল। এর আগে সবচেয়ে কিপটে স্পেলের রেকর্ড ছিল আনরিখ নর্কিয়ার। এই বিশ্বকাপেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪ ওভার বোলিং করে ৭ রানে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন নর্কিয়া। উগান্ডার হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন আলপেশ রামজানি, কসমাস কিয়েউতা ও জুমা মিয়াজি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে ওভারপ্রতি সবচেয়ে কম রান উঠেছে এই ম্যাচে। আজকের ম্যাচে ওভারপ্রতি রান উঠেছে ৪.১৩ করে। এর আগে ওভারপ্রতি সর্বনিম্ন রান ছিল শ্রীলঙ্কা বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচে। সেটিও হয়েছিল এবারের বিশ্বকাপে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটিই পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে উগান্ডার প্রথম জয়। আর এই হারে বিশ্বকাপে এখনো জয়হীন রয়ে গেল পাপুয়া নিউগিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাপুয়া নিউগিনি: ১৯.১ ওভারে ৭৭ (হিরি হিরি ১৫, কিপলিং দোরিগা ১২, লেগা সিয়াকা ১২; ফ্র্যাঙ্ক এনসুবুগা ৪-২-৪-২, আলপেশ রামজানি ৪-১-১৭-২)

উগান্ডা: ১৮.২ ওভারে ৭৮/৭ (রিয়াজাত আলী শাহ ৩৩, জুমা মিয়াজি ১৩; আলেই নাও ৪-০-১৬-২, নরমান ভানুয়া ৪-০১৯-২)

ফল: উগান্ডা ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা: রিয়াজাত আলী শাহ

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উগান্ডার ঐতিহাসিক জয়

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৩:৩১:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৭ জুন ২০২৪
print news -

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উগান্ডার ঐতিহাসিক জয়: বিশ্বকাপই পারে এমন দারুণ গল্পের জন্ম দিতে! অবশ্য গল্পটা উগান্ডার জন্যই বোধ হয় দারুণ। পাপুয়া নিউগিনির জন্য স্বপ্নভঙ্গের। লড়াই করতে করতে আরও একবার হেরেছে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ খেলতে আসা পাপুয়া নিউগিনি। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৫ উইকেটে হারের পর আজ উগান্ডার বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরেছে তারা।

গায়ানায় পাপুয়া নিউগিনির দেওয়া ৭৮ রানের লক্ষ্য উগান্ডা টপকে গেছে ১০ বল হাতে রেখে। দলটির স্বপ্নভঙ্গের গল্পে উগান্ডার আগ্রহ থাকার কথা নয়। কারণ, উগান্ডা যে প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে এসেই ঐতিহাসিক জয় তুলে নিয়েছে! সেটাও মাত্র দ্বিতীয় ম্যাচে। তাই দিনটা তাদের জন্য শুধুই উৎসবের।

টস জিতে ফিল্ডিং করা উগান্ডা মাত্র ৭৮ রানের লক্ষ্য পেয়েও সহজে জয় পায়নি। একটা পর্যায়ে তো এই ৭৮ রানই মনে হয়েছে দূরের পথ। মাত্র ২৬ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল উগান্ডা। সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন রিয়াজাত আলী শাহ।

৫৬ বলে ৩৩ রানের ইনিংস খেলেন এই ব্যাটসম্যান। ওয়ানডে মেজাজের এই ইনিংসই এখন উগান্ডার ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা ইনিংসের মর্যাদা পেতে পারে। তিনি অবশ্য ম্যাচটি জিতিয়ে আসতে পারেননি। জয় থেকে ৩ রানের দূরত্বে উইকেট দিয়ে আসেন রিয়াজাত। তাতে কী! ম্যাচসেরার পুরস্কারটা তাঁর হাতেই উঠেছে।

অবশ্য উগান্ডার ম্যাচ জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়েছিল তাদের বোলাররা। একজনের নাম আলাদা করে বলতে হবে। বিশ্বকাপ শুরুর আগে থেকেই অবশ্য তিনি আলোচনায়। অভিষেকের পর ২৭ বছর অপেক্ষা করে বিশ্বকাপ খেলা ৪৩ বছর বয়সী ফ্র্যাঙ্ক এনসুবুগা বিশ্বকাপে নিজের প্রথম ম্যাচেই গড়েছেন রেকর্ড।

আজ ৪ ওভারে ৪ রানে ২ উইকেট তুলে নিয়েছেন এই স্পিনার—টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে সবচেয়ে কিপটে স্পেল। এর আগে সবচেয়ে কিপটে স্পেলের রেকর্ড ছিল আনরিখ নর্কিয়ার। এই বিশ্বকাপেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪ ওভার বোলিং করে ৭ রানে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন নর্কিয়া। উগান্ডার হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন আলপেশ রামজানি, কসমাস কিয়েউতা ও জুমা মিয়াজি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে ওভারপ্রতি সবচেয়ে কম রান উঠেছে এই ম্যাচে। আজকের ম্যাচে ওভারপ্রতি রান উঠেছে ৪.১৩ করে। এর আগে ওভারপ্রতি সর্বনিম্ন রান ছিল শ্রীলঙ্কা বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচে। সেটিও হয়েছিল এবারের বিশ্বকাপে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটিই পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে উগান্ডার প্রথম জয়। আর এই হারে বিশ্বকাপে এখনো জয়হীন রয়ে গেল পাপুয়া নিউগিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাপুয়া নিউগিনি: ১৯.১ ওভারে ৭৭ (হিরি হিরি ১৫, কিপলিং দোরিগা ১২, লেগা সিয়াকা ১২; ফ্র্যাঙ্ক এনসুবুগা ৪-২-৪-২, আলপেশ রামজানি ৪-১-১৭-২)

উগান্ডা: ১৮.২ ওভারে ৭৮/৭ (রিয়াজাত আলী শাহ ৩৩, জুমা মিয়াজি ১৩; আলেই নাও ৪-০-১৬-২, নরমান ভানুয়া ৪-০১৯-২)

ফল: উগান্ডা ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা: রিয়াজাত আলী শাহ