০৪:১৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাতি সংঘ মানবা্ধিকার হাইকমিশনারে’র বিবৃতির প্রতিবাদ

print news -

জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনার গত ৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ নিয়ে যে বিবৃতি প্রচার করেছেন, সেটির কড়া প্রতিবাদ করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

রবিবার (১৪ জানুয়ারি) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘জাতিসংঘ হাইকমিশনারের বিবৃতি তাদের নজরে এসেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে হাইকমিশনারের যে ম্যান্ডেট রয়েছে, তার বাইরে গিয়ে তিনি কাজ করেছেন। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতিকে রাজনীতিকরণের মাধ্যমে তিনি বিবৃতিতে বাস্তবতার ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছেন এবং তার মূল্যায়ন পক্ষপাতিত্বমূলক।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতিতে জানায় গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখার জন্য ৭ জানুয়ারি একটি অবাধ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করার জন্য সরকার দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিল। বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ছিল এবং বিভিন্ন বিদেশি পর্যবেক্ষক এ বিষয়ে তাদের পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয় নির্বাচনে সহিংসতা হয়েছে এবং অনিয়ম হয়েছে,এই দাবিটি সে কারণে সম্পূর্ণ পক্ষপাতমূলক এবং ভুল।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বাংলাদেশ যেকোনও ধরনের গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানায় এবং যেকোনও ধরনের ন্যায্য উদ্বেগ সংশোধনের জন্য তৈরি রয়েছে। জাতিসংঘ এবং এর মানবাধিকার মেকানিজমের সঙ্গে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে অব্যাহতভাবে কাজ করবে।

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

জাতি সংঘ মানবা্ধিকার হাইকমিশনারে’র বিবৃতির প্রতিবাদ

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৩:৩৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪
print news -

জাতিসংঘ মানবাধিকার হাইকমিশনার গত ৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ নিয়ে যে বিবৃতি প্রচার করেছেন, সেটির কড়া প্রতিবাদ করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

রবিবার (১৪ জানুয়ারি) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘জাতিসংঘ হাইকমিশনারের বিবৃতি তাদের নজরে এসেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে হাইকমিশনারের যে ম্যান্ডেট রয়েছে, তার বাইরে গিয়ে তিনি কাজ করেছেন। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতিকে রাজনীতিকরণের মাধ্যমে তিনি বিবৃতিতে বাস্তবতার ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছেন এবং তার মূল্যায়ন পক্ষপাতিত্বমূলক।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতিতে জানায় গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখার জন্য ৭ জানুয়ারি একটি অবাধ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করার জন্য সরকার দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিল। বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ছিল এবং বিভিন্ন বিদেশি পর্যবেক্ষক এ বিষয়ে তাদের পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয় নির্বাচনে সহিংসতা হয়েছে এবং অনিয়ম হয়েছে,এই দাবিটি সে কারণে সম্পূর্ণ পক্ষপাতমূলক এবং ভুল।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বাংলাদেশ যেকোনও ধরনের গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানায় এবং যেকোনও ধরনের ন্যায্য উদ্বেগ সংশোধনের জন্য তৈরি রয়েছে। জাতিসংঘ এবং এর মানবাধিকার মেকানিজমের সঙ্গে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে অব্যাহতভাবে কাজ করবে।