০৫:৩১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চিত্রনায়ক ফারুক ছিলেন বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী

print news -

চিত্রনায়ক ফারুক দেশের জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছেন, সংসদ সদস্য হিসেবে দেশ গড়ায় ভূমিকা রেখেছেন এবং চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সততা, দেশপ্রেম ও ন্যায়ের পথ দেখিয়েছেন’—চিত্রনায়ক ফারুক ছিলেন বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতি অনড় পাথরের মতো অবিচল। তিনি তার আদর্শের ব্যাপারে কখনো একচুলও ছাড় দেননি।সদ্যপ্রয়াত চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের কফিনে শ্রদ্ধা নিবেদনকালে এসব কথা বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচার সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।

চিত্রনায়ক ফারুক এর মৃত্যুতে গভির শোক প্রকাশ করেছে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট

মঙ্গলবার (১৬ মে) ফারুকের মরদেহ তার দীর্ঘ ৫০ বছরের কর্মস্থল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) প্রাঙ্গণে আনা হলে সরকারি সফরে বিদেশে অবস্থানরত মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং মন্ত্রণালয়ের সবার পক্ষে তথ্যসচিব কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর আগে তিনি জানাজায় অংশ নেন। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এ সময় হুমায়ুন কবীর খোন্দকার আরও বলেন, ‘প্রয়াত এ তারকা দীর্ঘ পাঁচ দশকের চলচ্চিত্র জীবনে অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজক ও পরিবেশক হিসেবেও সিনেমা অঙ্গনে অবদান রেখেছেন। তার কর্ম তাকে স্মরণীয় করে রেখেছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের চলচ্চিত্র, সোশ্যাল ও নিউমিডিয়া উইংয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. জাহাঙ্গীর আলম, বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন, সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিবারের নেতারা এবং সদস্য পরিচালক, প্রযোজক, পরিবেশক, শিল্পী, কলাকুশলী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি এবং সিনেমা ও তথ্য মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও কর্মকর্তারা ফারুকের অন্তিম যাত্রায় শ্রদ্ধা নিবেদনে অংশ নেন।

দেশবরেণ্য চিত্রতারকা ফারুক দীর্ঘ ক্যানসারের চিকিৎসাধীন অবস্থায় চিত্রনায়ক ফারুক সোমবার (১৫ মে) স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি স্ত্রী ফারজানা পাঠান, মেয়ে ফারিহা তাবাসসুম পাঠান ও ছেলে রওশন হোসেন শরৎ পাঠান, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবসহ অসংখ্য ভক্ত রেখে গেছেন। আজ (মঙ্গলবার) রাত নয়টায় সোমটিওরী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ ময়দানে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে ওই মসজিদ সংলগ্ন পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। এর আগে সন্ধ্যার দিকে চিত্রনায়ক ও সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন পাঠান দুলু ওরফে ফারুকের পৈতৃক ভিটায় তার মরদেহ আনা হবে। সেখানে এলাকার সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

আনোয়ারুল আজীমকে খুন করতে ৫ কোটি টাকার চুক্তি

চিত্রনায়ক ফারুক ছিলেন বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০২:৪০:৩৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ মে ২০২৩
print news -

চিত্রনায়ক ফারুক দেশের জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছেন, সংসদ সদস্য হিসেবে দেশ গড়ায় ভূমিকা রেখেছেন এবং চলচ্চিত্রের মাধ্যমে সততা, দেশপ্রেম ও ন্যায়ের পথ দেখিয়েছেন’—চিত্রনায়ক ফারুক ছিলেন বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতি অনড় পাথরের মতো অবিচল। তিনি তার আদর্শের ব্যাপারে কখনো একচুলও ছাড় দেননি।সদ্যপ্রয়াত চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের কফিনে শ্রদ্ধা নিবেদনকালে এসব কথা বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচার সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।

চিত্রনায়ক ফারুক এর মৃত্যুতে গভির শোক প্রকাশ করেছে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট

মঙ্গলবার (১৬ মে) ফারুকের মরদেহ তার দীর্ঘ ৫০ বছরের কর্মস্থল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) প্রাঙ্গণে আনা হলে সরকারি সফরে বিদেশে অবস্থানরত মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং মন্ত্রণালয়ের সবার পক্ষে তথ্যসচিব কফিনে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর আগে তিনি জানাজায় অংশ নেন। তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এ সময় হুমায়ুন কবীর খোন্দকার আরও বলেন, ‘প্রয়াত এ তারকা দীর্ঘ পাঁচ দশকের চলচ্চিত্র জীবনে অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজক ও পরিবেশক হিসেবেও সিনেমা অঙ্গনে অবদান রেখেছেন। তার কর্ম তাকে স্মরণীয় করে রেখেছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের চলচ্চিত্র, সোশ্যাল ও নিউমিডিয়া উইংয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. জাহাঙ্গীর আলম, বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন, সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিবারের নেতারা এবং সদস্য পরিচালক, প্রযোজক, পরিবেশক, শিল্পী, কলাকুশলী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি এবং সিনেমা ও তথ্য মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও কর্মকর্তারা ফারুকের অন্তিম যাত্রায় শ্রদ্ধা নিবেদনে অংশ নেন।

দেশবরেণ্য চিত্রতারকা ফারুক দীর্ঘ ক্যানসারের চিকিৎসাধীন অবস্থায় চিত্রনায়ক ফারুক সোমবার (১৫ মে) স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় সিঙ্গাপুর মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি স্ত্রী ফারজানা পাঠান, মেয়ে ফারিহা তাবাসসুম পাঠান ও ছেলে রওশন হোসেন শরৎ পাঠান, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবসহ অসংখ্য ভক্ত রেখে গেছেন। আজ (মঙ্গলবার) রাত নয়টায় সোমটিওরী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ ময়দানে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে ওই মসজিদ সংলগ্ন পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। এর আগে সন্ধ্যার দিকে চিত্রনায়ক ও সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন পাঠান দুলু ওরফে ফারুকের পৈতৃক ভিটায় তার মরদেহ আনা হবে। সেখানে এলাকার সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।