০২:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজমিরীগঞ্জে সে তু থাকলেও নেই সংযোগ স ড় ক, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

print news -

নিউজ ডেস্ক:  হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জের শিবপাশা ইউনিয়নের পশ্চিমভাগ গ্রামের কদমতারা মহল্লার ভাগুলিপাড়া (পুবের বাড়ি) এলাকা। প্রায় শতাধিক পরিবারের কয়েকশ স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণের যাতায়াতের দুর্ভোগ কমাতে ধুলিয়া খালের ওপর সেতু নির্মাণ করা হয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে আট মিটার (২৮ ফিট) লম্বা সেতু নির্মাণ হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুর সুফল ভোগ করতে পারছেন না এলাকাবাসী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বলছেন, কয়েক মাসে পূর্বে যোগদান করায় বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত ছিলেন না। তবে তিনি খোঁজ নিয়ে জেনেছেন সেতুটি নির্মাণের পর বিভিন্ন জটিলতায় সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি এখনো।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে পশ্চিমভাগ কদমতারা গ্রামের ধুলিয়া খালের ওপর ২৩ লাখ ৮৩ হাজার টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়।

নির্মাণের পর কেটে গেছে প্রায় আট বছর। এই দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও সেতুর উভয় পাশে করা হয়নি কোন সংযোগ সড়ক। আর এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়াসহ গ্রামের নারী পুরুষদের চিকিৎসাসেবা ও বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদর এবং জেলা শহরে যাওয়া-আসায় সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে আলাপকালে পশ্চিমভাগ কদমতারা গ্রামের সস্তু মিয়া কালবেলাকে বলেন, দীর্ঘদিন আগে সেতুটি নির্মাণ করা হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুটি এলাকাবাসীর দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোনো কাজেই আসছে না সেতুটি।

এলাকার বয়োবৃদ্ধ বাবুল মিয়া জানান, সেতুটির সংযোগ সড়ক না থাকায় শীতকালে মাটির বস্তা ফেলে কোনো রকমে চলাচল করা গেলেও বর্ষায় কাঁদা পানি মাড়িয়ে মূল সড়কে যেতে হয়। বিশেষ করে বয়োবৃদ্ধ, মহিলা ও স্কুলগামী ছোট বাচ্চাদের দুর্ভোগ পোহাতে হয় বেশি।

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মুহিবুর হাসান দুলু জানান, সেতুটি এলাকাবাসীর চলাচলের দুর্ভোগ কমাতে নির্মাণ করা হলেও সংযোগ সড়কের অভাবে এটি তেমন কাজে আসছে না।

শিবপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নলীউর রহমান তালুকদার বলেন, নির্মাণের পর সংযোগ সড়কের অংশে ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি জটিলতায় আজ অবদি সংযোগ সড়ক নির্মাণ সম্ভব হয়নি।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুবোধ মন্ডল বলেন, কয়েক মাস আগে আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় যোগদান করেছি। খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি কিছু জটিলতায় সংযোগ সড়কটি নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। সরেজমিন পরিদর্শন করে এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সুত্র: সময়ের কন্ঠস্বর

ট্যাগঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম

আজমিরীগঞ্জে সে তু থাকলেও নেই সংযোগ স ড় ক, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

প্রকাশিত হয়েছেঃ ০৫:০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
print news -

নিউজ ডেস্ক:  হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জের শিবপাশা ইউনিয়নের পশ্চিমভাগ গ্রামের কদমতারা মহল্লার ভাগুলিপাড়া (পুবের বাড়ি) এলাকা। প্রায় শতাধিক পরিবারের কয়েকশ স্কুল-কলেজ শিক্ষার্থীসহ জনসাধারণের যাতায়াতের দুর্ভোগ কমাতে ধুলিয়া খালের ওপর সেতু নির্মাণ করা হয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে আট মিটার (২৮ ফিট) লম্বা সেতু নির্মাণ হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুর সুফল ভোগ করতে পারছেন না এলাকাবাসী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বলছেন, কয়েক মাসে পূর্বে যোগদান করায় বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত ছিলেন না। তবে তিনি খোঁজ নিয়ে জেনেছেন সেতুটি নির্মাণের পর বিভিন্ন জটিলতায় সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়নি এখনো।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে পশ্চিমভাগ কদমতারা গ্রামের ধুলিয়া খালের ওপর ২৩ লাখ ৮৩ হাজার টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়।

নির্মাণের পর কেটে গেছে প্রায় আট বছর। এই দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও সেতুর উভয় পাশে করা হয়নি কোন সংযোগ সড়ক। আর এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়াসহ গ্রামের নারী পুরুষদের চিকিৎসাসেবা ও বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদর এবং জেলা শহরে যাওয়া-আসায় সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে।

সরেজমিনে আলাপকালে পশ্চিমভাগ কদমতারা গ্রামের সস্তু মিয়া কালবেলাকে বলেন, দীর্ঘদিন আগে সেতুটি নির্মাণ করা হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় সেতুটি এলাকাবাসীর দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোনো কাজেই আসছে না সেতুটি।

এলাকার বয়োবৃদ্ধ বাবুল মিয়া জানান, সেতুটির সংযোগ সড়ক না থাকায় শীতকালে মাটির বস্তা ফেলে কোনো রকমে চলাচল করা গেলেও বর্ষায় কাঁদা পানি মাড়িয়ে মূল সড়কে যেতে হয়। বিশেষ করে বয়োবৃদ্ধ, মহিলা ও স্কুলগামী ছোট বাচ্চাদের দুর্ভোগ পোহাতে হয় বেশি।

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মুহিবুর হাসান দুলু জানান, সেতুটি এলাকাবাসীর চলাচলের দুর্ভোগ কমাতে নির্মাণ করা হলেও সংযোগ সড়কের অভাবে এটি তেমন কাজে আসছে না।

শিবপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নলীউর রহমান তালুকদার বলেন, নির্মাণের পর সংযোগ সড়কের অংশে ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি জটিলতায় আজ অবদি সংযোগ সড়ক নির্মাণ সম্ভব হয়নি।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুবোধ মন্ডল বলেন, কয়েক মাস আগে আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় যোগদান করেছি। খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি কিছু জটিলতায় সংযোগ সড়কটি নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। সরেজমিন পরিদর্শন করে এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সুত্র: সময়ের কন্ঠস্বর